দলের যুব মোর্চার অভিযানে কর্মী-সমর্থকদের উপরে পুলিশি নির্যাতনের অভিযোগে বুধবার আসানসোল দক্ষিণ থানায় বিক্ষোভ দেখাল বিজেপির মহিলা মোর্চা। পরে সংগঠনের তরফে একটি স্মারকলিপিও দেওয়া হয়। এই কর্মসূচির জেরে বুধবার ঘণ্টা তিনেক জিটি রোড অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে।

৫ জুলাই আসানসোল পুরসভা অভিযানের ডাক দিয়েছিল বিজেপির যুব মোর্চা। ওই কর্মসূচিতে পুলিশের দিকে ইট-পাথর ছোড়ার অভিযোগ ওঠে। পুলিশ লাঠি চালিয়ে ও কাঁদানে গ্যাসের সেল ফাটিয়ে ছত্রভঙ্গ করে জনতাকে। পুলিশের উপরে হামলার অভিযোগে কয়েকজনকে গ্রেফতারও করা হয়। এর প্রতিবাদেই বুধবার আসানসোল দক্ষিণ থানায় বিক্ষোভ দেখায় বিজেপির মহিলা মোর্চা। দুপুর ১২টা নাগাদ সংগঠনের কয়েকশো কর্মী-সমর্থক মিছিল করে থানায় পৌঁছন। আগে থেকেই প্রচুর মহিলা পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল। ছিলেন কমিশনারেটের কর্তারাও। ঘণ্টাখানেক বিক্ষোভের পরে সংগঠনের একটি প্রতিনিধি দল পুলিশের হাতে স্মারকলিপি দেয়।

বিজেপির মহিলা মোর্চার নেত্রী আশা শর্মার অভিযোগ, ‘‘৫ জুলাই মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারির নেতৃত্বে ও পুলিশের সহযোগিতায় তৃণমূলের গুন্ডারা আমাদের যুব কর্মীদের উপরে নির্যাতন চালিয়েছে। অনেক মহিলাও আহত হয়েছেন। ১৭ জন যুব কর্মীকে হাসপাতালে ভর্তি করাতে হয়েছে।’’ জিতেন্দ্রবাবুর পাল্টা বক্তব্য, ‘‘আমরা মহিলাদের সম্মান করি। যে অভিযোগ তোলা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।’’

এ দিন থানার চারপাশে গার্ডরেলের ব্যারিকেড রাখা হয়েছিল। থানাটি একেবারে জিটি রোড লাগোয়া হওয়ায় সকাল ১০টা থেকে সেখানে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়। বরাকরগামী গাড়িগুলিকে আশ্রম মোড় দিয়ে ঘুরিয়ে রেলের রাস্তা ধরে লোকো স্টেডিয়ামের কাছে পাঠানো হচ্ছিল। আবার দুর্গাপুরের দিকে যাওয়া গাড়িগুলিকে লোকো স্টেডিয়াম দিয়ে ঘুরিয়ে রেলের রাস্তা ধরে আশ্রম মোড় দিয়ে বার করা হয়। আচমকা এই পরিস্থিতিতে অনেকেই হয়রান হন। আসানসোল বাজারে যাওয়ার জন্য যাঁরা বেরিয়েছিলেন তাঁদের প্রায় দু’কিলোমিটার ঘুরে যেতে হয়।