সাংগঠনিক কর্মসূচিতে যোগ দিতে এসেছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তাঁকে কালো পতাকা দেখায় তৃণমূল। শনিবার বর্ধমান শহরের ঘটনা। এই ঘটনায় তৃণমূল-বিজেপি চাপানউতোর শুরু হয়েছে।

এ দিন শহরের গুডশেড রোডের একটি প্রেক্ষাগৃহে বিজেপির সাংগঠনিক বৈঠকটি হয়। বিজেপির অভিযোগ, সভায় আসা-যাওয়ার পথে গুডশেড রোড মোড় এলাকায় কালো পতাকা দেখান তৃণমূলের স্থানীয় নেতা, কর্মীরা। তবে দিলীপবাবুকে ওই কর্মীদের লক্ষ করে হাত নাড়তে দেখা যায়।

এই ঘটনার প্রতিবাদে বিকেলে বিজেপি যুব মোর্চা প্রতিবাদ-মিছিল করে। সভা সেরে দিলীপবাবুর ফেরার পথে তৃণমূলের কালো পতাকা দেখানোকে কেন্দ্র করে রাজ্যের শাসক দল ও বিজেপির নেতা, কর্মীদের মধ্যে বচসা, স্লোগান-পাল্টা স্লোগান দিতে দেখা যায়। কালো পতাকা দেখানোর প্রতিবাদে বিজেপি কর্মীরা জিটি রোডের উপরেই বসে পড়েন। বিষয়টি নিয়ে পরে তৃণমূল ও রাজ্য পুলিশের ভূমিকার সমালোচনা করেন দিলীপবাবু। তবে বর্ধমান থানার পুলিশ জানায়, দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

দিলীপবাবুকে কালো পতাকা দেখানোর ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিজেপি-তৃণমূল চাপানউতোর তৈরি হয় শহরে। বিজেপির জেলা সভাপতি (সাংগঠনিক) সন্দীপ নন্দী বলেন, ‘‘তৃণমূলের পায়ের তলা থেকে মাটি সরে গিয়েছে। তাই এমন সব ঘটনা ঘটাচ্ছে।’’ যদিও তৃণমূলের জেলা সাধারণ সম্পাদক খোকন দাস বলেন, ‘‘বিজেপি নেতৃত্ব উস্কানিমূলক মন্তব্য করছেন। তার বিরুদ্ধে এটা মানুষের বিক্ষোভ।’’

এ দিনের বৈঠকে আগামী তিন বছরের জন্য কী ভাবে বুথ কমিটি ও মণ্ডল কমিটি তৈরি করা হবে, তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয় বলে বিজেপি সূত্রে খবর। বৈঠকে যোগ দেন বর্ধমান-দুর্গাপুর কেন্দ্রের সাংসদ সুরিন্দর সিংহ অহলুওয়ালিয়া, দলের নেতা সন্দীপবাবু প্রমুখ।