জেলা জুড়ে বিভিন্ন পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল পাঁচ জনের।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার দু’নম্বর জাতীয় সড়ক ধরে বাড়ি ফেরার সময় গাড়ি ধাক্কা মারে গলসির অনুরাগপুরের সাধন বাগদি (৪৮)কে। আহত অবস্থায় পেশায় দিনমজুর ওই ব্যক্তিকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করানো হলে রবিবার সন্ধ্যায় মারা যান তিনি।

গাড়ির ধাক্কায় মৃত্যু হয়েছে সাধন ধারা (৩৫) নামে এক ব্যক্তিরও। তাঁর বাড়ি ভাতার থানার আমবোনা এলাকায়। মৃতের পরিবারের দাবি, রবিবার সন্ধ্যায় কাজ সেরে দেওয়ানদিঘি থানার হালদার রোডে বাস ধরার জন্য দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। তাঁকে উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিক্যালে ভর্তি করানো হলে সেখানেই গভীর রাতে তিনি মারা যান।

জামালপুরের কাছেও দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় শেখ সাবির (২২) নামে এক যুবকের। হলদিয়ার কুমারপুর গ্রামের ওই যুবক পেশায় ট্রাক চালক ছিলেন। তাঁর পরিবারের দাবি, বীরভূমে এক জনের ট্রাক চালাতেন তিনি। মালিকের গাড়ি নিয়েই রবিবার ভোরে বাড়ি ফিরছিলেন। জামালপুরের কাছে অন্য একটি গাড়িকে পাশ কাটাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছে ধাক্কা মারেন তিনি। অনাময় হাসপাতালে ভর্তি করানো হলে দুপুরেই তিনি মারা যান।

মোটরবাইকের সঙ্গে সাইকেলের ধাক্কায় প্রাণ হারিয়েছেন এক বৃদ্ধ। মৃত বিকাশচন্দ্র মণ্ডলের (৭০) বাড়ি ভাতার থানার আড়া এলাকায়। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রবিবার সাইকেল নিয়ে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। তখনই ওই বাইকটি ধাক্কা মারে। রাতে বর্ধমান মেডিক্যালে তাঁর মৃত্যু হয়।