• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

অভব্য আচরণ, ঘেরাও প্রধান শিক্ষিকা

অভব্য আচরণ, স্কুল পরিচালনায় নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করা-সহ নানা অভিযোগে মঙ্গলবার পূর্বস্থলীর সাবিত্রী বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকাকে ঘেরাও করলেন শিক্ষিকাদের একাংশ। এ ছাড়া প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে জেলা স্কুল পরিদর্শকের কাছে দশ দফা অভিযোগ জানিয়েছেন অভিভাবকদের একাংশ। যদিও প্রধান শিক্ষিকার দাবি, নিয়ম মেনে কাজ করার কারণেই তাঁকে হয়রান করা হচ্ছে।

এ দিন স্কুল খোলার পরে শিক্ষিকাদের একাংশ প্রধান শিক্ষিকা মৌসুমী পালকে ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। বিক্ষোভকারী শিক্ষিকাদের অভিযোগ, স্কুল পরিচালনার ক্ষেত্রে কোনও নিয়মনীতির তোয়াক্কা করছেন না প্রধান শিক্ষিকা। সুতপা মুখোপাধ্যায়, রিনা সাহাদের মতো কয়েক জন শিক্ষিকার অভিযোগ, ক্লাস চলাকালীন ছাত্রীদের সামনেই অপমানজনক কথা বলেছেন মৌসুমীদেবী। তা ছাড়া স্কুল ঢোকা, বেরনো নিয়েও অনেক সময়ে সহশিক্ষিকাদের সঙ্গে মৌসুমীদেবী আলোচনা করেন না বলে অভিযোগ। এমনকী অনেক সময়ে হাজিরা খাতায় সই করতেও দেওয়া হয় না বলে দাবি।

প্রশাসনের সূত্রে জানা যায়, অভিভাবকদের মৌসুমীদেবীর বিরুদ্ধে মোট দশটি অভিযোগ জানিয়েছেন। এক অভিভাবকের ক্ষোভ, ‘‘পরিচালন সমিতিতে ঠিক হয়, প্রধান শিক্ষিকা সপ্তাহে ১২টি ক্লাস নেবেন। কিন্তু বিজ্ঞান বিভাগে শিক্ষক কম থাকা সত্ত্বেও উনি ক্লাস নেন না।’’

এ দিন বিক্ষোভের খবর পেয়ে স্কুলে পৌঁছন জেলা স্কুল পরিদর্শক খগেন্দ্রনাথ রায়। পরিস্থিতির সামাল দিতে স্কুলে বৈঠকও করা হয়। সেখানে যোগ দেন, পূর্বস্থলী পঞ্চায়েতের প্রধানও। বৈঠক শেষে খগেন্দ্রনাথবাবু বলেন, ‘‘এমন কিছু করা যাবে না, যাতে স্কুলের পরিবেশ নষ্ট হয়।’’

যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছেন প্রধান শিক্ষিকা। মৌসুমীদেবীর পাল্টা দাবি, ‘‘সব কিছু নিয়ম মেনেই করা হয়। সে বিষয়ে যথেষ্ট প্রমাণও রয়েছে। নিয়ম বহির্ভুত ভাবে সুবিধা না পেয়েই কয়েক জন শিক্ষিকা এ সব করছেন। অন্যায় দাবি কোনও অবস্থাতেই মানা হবে না।’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন