পুলিশের ভূমিকায় অসন্তোষ তিন দলেরই
পরের ধাপে জেলাশাসক ও পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে কথা বলেন অজয়বাবু। শেষ পর্যায়ে কথা বলেন নির্বাচনী পর্যবেক্ষকদের সঙ্গে।
ajay nayak

নির্বাচন কমিশনের বিশেষ পর্যবেক্ষক অজয় নায়েক। নিজস্ব চিত্র

নির্বাচন কমিশনের বিশেষ পর্যবেক্ষক অজয় নায়েকের কাছে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়েছে বলে জানাল বিজেপি, সিপিএম এবং তৃণমূল। সোমবার আসানসোলে এসে বিশেষ পর্যবেক্ষক বলেন, ‘‘আসানসোলে একশো শতাংশ বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকবে।’’

এ দিন সব বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের কথা জানিয়ে অজয়বাবু বলেন, ‘‘এ বিষয়ে আমি জেলাশাসক (পশ্চিম বর্ধমান) শশাঙ্ক শেঠি, আসানসোল-দুর্গাপুরের পুলিশ কমিশনারের লক্ষ্মীনারায়ণ মিনা, অন্য নির্বাচনী পর্যবেক্ষকদের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। সবার থেকেই রিপোর্ট নিয়েছি।’’ সেই সঙ্গে তাঁর দাবি, ‘‘আসানসোলের নির্বাচন নির্বিঘ্ন ও শান্তিপূর্ণই হবে।’’

সকাল সাড়ে ১১টা নাগাদ সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারে করে শহরের পোলো মাঠে নামেন অজয়বাবু। সেখান থেকে প্রথমে আসানসোলের এডিডিএ গেস্ট হাইসে যান। সেখানে প্রথমে সিপিএম, তৃণমূল, বিজেপি, কংগ্রেস-সহ বিভিন্ন দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলাদা করে বৈঠক করেন তিনি। এর পরের ধাপে জেলাশাসক ও পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে কথা বলেন অজয়বাবু। শেষ পর্যায়ে কথা বলেন নির্বাচনী পর্যবেক্ষকদের সঙ্গে। সব মিলিয়ে ঘণ্টা চারেক ধরেআলোচনা চলে।

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

বৈঠকে বিজেপি, সিপিএম এবং তৃণমূল বিশেষ পর্যবেক্ষকের কাছে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে বলে খবর। সিপিএম নেতা বংশগোপাল চৌধুরী বলেন, ‘‘পুলিশি নিষ্ক্রিয়তা, পুলিশের নিরপেক্ষতার অভাবের কথা পর্যবেক্ষককে জানিয়েছি। ৫০০টি স্পর্শকাতর বুথের তালিকা তাঁকে দিয়েছি।’’ তবে সেই সঙ্গে সব বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে বংশগোপালবাবুর মন্তব্য, ‘‘অতীতের নানা নির্বাচনে আমরা কমিশনের কথায়-কাজে ফারাক দেখেছি। তাই না আঁচালে বিশ্বাস নেই।’’

পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে বিজেপি-ও। বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়ের নির্বাচনী এজেন্ট তাপস রায়, ‘‘পুলিশি নিষ্ক্রিয়তায় সন্ত্রাসের আবহ তৈরি হয়েছে, তা জানিয়েছি। কুলটিতে এই নিষ্ক্রিয়তা সব থেকে বেশি। এ ছাড়া পাণ্ডবেশ্বর, বারাবনি, জামুড়িয়াতেও একই হাল। ১০৪০টি স্পর্শকাতর বুথের তালিকা আমরা দিয়েছি।’’

বাবুলের প্রচার কনভয় নিয়ে অভিযোগের পাশাপাশি, পুলিশের ভূমিকা নিয়েও কয়েকটি অসন্তোষের কথা অজয়বাবুকে জানানো হয়েছে বলে জানান তৃণমূল প্রার্থী মুনমুন সেনের নির্বাচনী এজেন্ট কর্নেল দীপ্তাংশু চৌধুরী।

কিন্তু কেন সব পক্ষের নিশানায় পুলিশ? সিপিএম ও বিজেপি নেতৃত্বের অভিযোগ, সম্প্রতি অণ্ডাল, বারাবনি-সহ এই কেন্দ্রের নানা প্রান্তে পুলিশ বিরোধীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসাচ্ছে। পদক্ষেপ করা হচ্ছে না নির্দিষ্ট অভিযোগেও। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তৃণমূল নেতা পুলিশের ভূমিকা নিয়ে কোথায় অসন্তোষ, তা সম্পর্কে নির্দিষ্ট করে কিছু বলেননি। তবে কুলটি, বারাবনি-সহ কিছু জায়গায় পুলিশের ভূমিকায় ক্ষোভ রয়েছে দলে, খবর তৃণমূল সূত্রে।

পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রসঙ্গে পুলিশ কমিশনার লক্ষ্মীনারায়ণ মিনার প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে তিনি কোনও মন্তব্য করতে চাননি।

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত