হাসপাতালে রয়েছেন ২৯২ জন সাফাইকর্মী। কিন্তু তার পরেও বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে যত্রতত্র আবর্জনা পড়ে কেন। শনিবার রোগীকল্যাণ সমিতির বৈঠকে এই প্রশ্নই তুলেছেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ, খবর হাসপাতাল সূত্রে। সেই সঙ্গে কিছু দিন আগে হাসপাতালে বিনা চিকিৎসায় এক বৃদ্ধের মৃত্যুর ঘটনা নিয়েও মন্ত্রী ক্ষোভপ্রকাশ করেন বলে হাসপাতাল সূত্রের খবর।

এ দিনের বৈঠকে স্বপনবাবু ছাড়াও যোগ দেন জেলাশাসক (পূর্ব বর্ধমান) বিজয় ভারতী, জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া, বর্ধমান মেডিক্যালের সুপার প্রবীর সেনগুপ্ত, ডেপুটি সুপার অমিতাভ সাহা,  মেডিক্যাল কলেজের প্রিন্সিপ্যাল সুহৃতা পাল-সহ রোগীকল্যাণ সমিতির অন্য সদস্যেরা।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, বৈঠকে সাফাই-সহ নানা বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে ‘কৈফিয়ত’ চান রোগীকল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান স্বপনবাবু। বৈঠক শেষে  স্বপনবাবু বলেন, ‘‘হাসপাতালের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার উপরে রোগীকল্যাণ সমিতি বিশেষ ভাবে জোর দিয়েছে।’’ কিছু দিন আগে বিনা চিকিৎসায় এক বৃদ্ধের মৃত্যুর অভিযোগ ওঠে হাসপাতালে। সে বিষয়ে হাসপাতালের নিজস্ব  তদন্ত কমিটির রিপোর্ট বৈঠকে পেশ করা হয়। এই ধরনের ঘটনা আগামিদিনে যাতে না ঘটে সেই বিষয়েও সতর্ক করেন স্বপনবাবু।

বৈঠকে ঠিক হয়েছে, আরও ৩২  জন সাফাইকর্মী নিয়োগ করা হবে। পাশাপাশি, নার্সিং স্টাফ, ডাক্তারি পড়ুয়া, হাসপাতালের সঙ্গে যুক্ত কর্মী, চিকিৎসক, পুলিশ ও সিভিক ভলান্টিয়ারদেরও পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে আরও গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দেন স্বপনবাবু। তাঁর অনুরোধ, সবাই যেন মাসে অন্তত এক দিন সাফাইয়ের কাজে হাত লাগান।

পাশাপাশি, চিকিৎসা পরিষেবা সংক্রান্ত কিছু বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর। হাসপাতালে নতুন ডায়ালিসিস ইউনিটের বেডের সংখ্যা বাড়ানো, ২০টি নতুন যন্ত্র এসেছে সেগুলি পুজোর আগে চালু করার কথা জানানো হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, এ বার থেকে ফি দিন ২৪ ঘণ্টা হাসপাতালে আশি থেকে একশো জন ডায়ালিসিস পরিষেবা পাবেন। তা ছাড়া, হাসপাতাল সূত্রে জানানো হয়েছে,  জরুরি বিভাগের সামনে তৈরি হওয়া আট তলার ভবনে অক্সিজেন সরবরাহের পাইপলাইন চালুর কাজ চলছে।