‘মোমো’র আতঙ্ক তৈরি হল কালনা ও কাটোয়াতেও। দুই এলাকার দুই ছাত্রের অভিযোগ, তাদের মোবাইলে এই গেম খেলার বার্তা এসেছে। পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছে দু’জনেই।

কালনা মহারাজা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র অর্চিস্মান চৌধুরীর পরিজনেরা জানান, বুধবার দুপুরে তার ফোনে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে পরপর তিনটি বার্তা আসে। অজানা নম্বর থেকে আসা সেই বার্তাগুলিতে তাকে ‘মোমো’ গেম খেলার ডাক দেওয়া হয়। বিষয়টি সে মা স্বপ্নাদেবীকে জানায়। মায়ের পরামর্শে দ্রুত নম্বরটি ‘ব্লক’ করে দেয়। অর্চিস্মান জানায়, খবর পেয়ে তার স্কুলের এক শিক্ষকও ফোন করে বিষয়টি পুলিশে জানানোর পরামর্শ দেন। দুপুরে ঠাকুমা আরতি চৌধুরীকে নিয়ে কালনা থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ করে অর্চিস্মান।

কেতুগ্রামের পাণ্ডগ্রামের বছর একুশের জয়কৃষ্ণ পাল কাটোয়া কলেজের স্নাতকের তৃতীয় বর্ষে পড়াশোনা করেন। কাটোয়ার বেলতলায় একটি বাড়িতে ভাড়া থাকেন। তিনি জানান, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ তিনি একটি অপরিচিত নম্বর থেকে ‘মোমো’ খেলার বার্তা পান। মিনিট পাঁচেকের মধ্যে ফোনের তথ্য ‘হ্যাক’ করার হুমকি দিয়েও বার্তা আসে বলে তাঁর অভিযোগ। তিনি নম্বরটি ‘ব্লক’ করে দেন। আতঙ্কে ফোনটি এক গৃহশিক্ষকের কাছে রেখে আসেন বলে জানান জয়কৃষ্ণ। বিষয়টি কলেজ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।