• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

রাজ্য সড়কের উপরেই বাসে চলে যাত্রী তোলা

Highway
পানাগড়-দুবরাজপুর সড়কে কাঁকসার একটি স্টপেজে। নিজস্ব চিত্র

দক্ষিণবঙ্গের সঙ্গে উত্তরবঙ্গের যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম পানাগড়-দুবরাজপুর রাজ্য সড়ক। এই রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার ট্রাক, ডাম্পার, ট্রেলার যাতায়াত করে। এ ছাড়া, কয়েকশো বেসরকারি ও সরকারি বাসও চলে এই রাস্তা দিয়ে। বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, মালদহ-সহ উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় যাওয়ার জন্য বহু দূরপাল্লার বাস এই রাস্তা দিয়েই যাতায়াত করে। রাস্তাটি দুর্ঘটনাপ্রবণও বটে। প্রায় দিনই রাস্তার বিভিন্ন জায়গায় প্রাণহানির ঘটনাও ঘটে। অথচ, এই রাস্তার অধিকাংশ জায়গায় স্টপেজে বাস দাঁড়ানোর নির্দিষ্ট জায়গা নেই। ফলে, রাস্তার উপরেই বাস দাঁড় করিয়ে যাত্রী ওঠা-নামানো চলে। এতে বিপদ বাড়ে, বলে জানিয়ছেন স্থানীয় বাসিন্দা থেকে নিত্যযাত্রীরা।

কয়েকদিন আগে কাজ থেকে মোটরবাইকে করে এই রাজ্য সড়ক ধরে বাড়ি ফিরছিলেন কাঁকসার বসুধার তন্ময় মণ্ডল। তিনি জানান, একটি বেসরকারি বাসের পিছনে আসছিলেন তিনি। হঠাৎই ২ নম্বর কলোনি স্টপেজের কাছে রাস্তার উপরেই ব্রেক কষে দাঁড়িয়ে পড়ে বাসটি। কোনওমতে নিজের বাইক সামলে রক্ষা পান তিনি। এই রাজ্য সড়কে এই দৃশ্য প্রায়ই লক্ষ্য করা যায়, বলে দাবি নিত্যযাত্রীদের।

এই সড়কের ২৩ কিলোমিটার অংশ রয়েছে কাঁকসা এলাকায়। দার্জিলিং মোড় থেকে ইলামবাজারে অজয় নদের সেতুর আগে পর্যন্ত প্রায় কুড়িটি ছোট বড় বাসস্টপেজ রয়েছে। মাস খানেক ধরে ফের বাস চলাচল শুরু হওয়ার পর থেকে ওই সব বাসস্টপেজগুলি থেকে প্রতিদিন বহু মানুষ ওঠানামা করেন। কিন্তু অধিকাংশ স্টপেজগুলিতে বাস দাঁড়ানোর নির্দিষ্ট জায়গা নেই। এলাকার বাসিন্দা পূর্ণচন্দ্র দে, রবি সাহাদের অভিযোগ, কয়েকটি জায়গায় স্টপেজে বাস দাঁড়ানোর জায়গা থাকলেও চালকেরা অনেক সময় সেখানে যাত্রী ওঠানামা করান না। রাস্তার মাঝেই বাস দাঁড়িয়ে সেই কাজ চলে। ফলে, দুর্ঘটনাও ঘটছে। নিত্যযাত্রীরা জানিয়েছেন, যাঁরা প্রতিদিন ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে যাতায়াত করেন, তাঁরা স্টপেজ সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হলেও, নতুন কেউ এই পথ দিয়ে এলে সমস্যায় পড়তে হয় বেশি। নিত্যযাত্রী অমিত মণ্ডল, কৌশিক বাগরা বলেন, ‘‘প্রশাসনের উচিত যেখানে জায়গা আছে, সেখানে যাতে বাস দাঁড়ায় সেই পদক্ষেপ করা। আর যেখানে নেই, ওই সব জায়গায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।’’

কাঁকসা থানার পুলিশ জানিয়েছে, গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলিতে সিভিক ভলান্টিয়ার্স রেখে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া হচ্ছে। পূর্ত দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, রাস্তাটি অনেক জায়গায় সঙ্কীর্ণ হয়ে গিয়েছে। সে সব স্টপেজে জায়গার ব্যবস্থা করা যায়নি ভবিষ্যতে যাতে করা যায় সেই চেষ্টা করা হবে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন