দলের নিহত কর্মীর বাড়িতে গিয়ে অর্থসাহায্য করলেন বিজেপি সাংসদ সুরেন্দ্র সিংহ অহলুওয়ালিয়া। মঙ্গলবার কাঁকসার রূপগঞ্জ গ্রামে নিহত সন্দীপ ঘোষের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন বর্ধমান-দুর্গাপুরের সাংসদ সুরেন্দ্র।

গত ২ ডিসেম্বর দলীয় বৈঠক সেরে বাড়ি ফেরার পথে কাঁকসার সরস্বতীগঞ্জের কাছে দুষ্কৃতীদের গুলিতে খুন হন বছর বাইশের সন্দীপ। বিজেপির অভিযোগ, এর পিছনে রয়েছে তৃণমূলের লোকজন। পুলিশ বেশ কয়েকজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। ঘটনার পরে বিভিন্ন সময়ে সন্দীপের বাড়িতে এসেছেন দলের নেতারা। এক বার তাঁদের দেওয়া টাকার চেক ফেরত দেন মৃতের বাবা বিজয় ঘোষ। লোকসভা ভোটের আগে সন্দীপের বাড়িতে আসেন সুরেন্দ্র। এ দিন ফের সেখানে এসে বিজয়বাবুর হাতে পাঁচ লক্ষ টাকার একটি চেক তুলে দেন তিনি ও দলের অন্য নেতারা।

তাঁরা সব সময় নিহতের পরিবারের পাশে রয়েছেন দাবি করে সাংসদ বলেন, ‘‘সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে দলের শহিদ কর্মীদের বাড়িতে গিয়ে সান্ত্বনা দেওয়া ও নানা ভাবে সাহায্য করা হচ্ছে।’’ বিজয়বাবু বলেন, ‘‘আমাকে পাঁচ লক্ষ টাকার চেক দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি আমি মেয়ের একটি চাকরির জন্য সাংসদের কাছে আবেদন করেছি।’’

‘সেবা সপ্তাহ’ উপলক্ষে সুরেন্দ্র এ দিন কাঁকসার নানা এলাকায় বিভিন্ন কর্মসূচিতে যোগ দেন। রক্ষিতপুর ও আমানিডাঙা আদিবাসী গ্রামে স্বাস্থ্যপরীক্ষা শিবিরে যান তিনি। সাংসদ জানান, বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে তিনি জেনেছেন, একশো দিনের কাজ বন্ধ রয়েছে। তাঁর দাবি, কেন্দ্র টাকা পাঠাচ্ছে। এই কাজ পঞ্চায়েত বা জেলাশাসকের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। রাজ্যে সব জায়গায় কাজ হচ্ছে না। মানুষকে ভুল বোঝানো হচ্ছে। এর বিরুদ্ধেও তাঁদের কর্মীরা আন্দোলন করবেন বলে তিনি জানান।

কাঁকসার তৃণমূল নেতা দেবদাস বক্সীর পাল্টা দাবি, কেন্দ্র একশো দিনের বিভিন্ন প্রকল্প বন্ধ করে দিয়েছে। এখন জোর দেওয়া হয়েছে গাছ লাগানোর উপরে। সেখানে বেশি কর্মসংস্থানের সুযোগ থাকছে না। তাঁর অভিযোগ, ‘‘কেন্দ্র একশো দিনের কাজ বন্ধ করে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে।’’