• দুর্গাপুর
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

জনসংযোগে মিষ্টি ৬০ হাজার বাড়িতে, কটাক্ষ বিরোধীর

greetings
পাণ্ডবেশ্বর বিধানসভা এলাকায় শুরু হল কর্মসূচি। নিজস্ব চিত্র।

জনসংযোগে মিষ্টি-কর্মসূচি! বিজয়ার শুভেচ্ছা জানাতে পাণ্ডবেশ্বর বিধানসভার প্রায় ৬০ হাজার বাড়িতে নাড়ু ও শোনপাপড়ির প্যাকেট নিয়ে হাজির হচ্ছে তৃণমূল। বৃহস্পতিবার দুর্গাপুর-ফরিদপুর ব্লকের ইছাপুর গ্রামের গড়াইপাড়ায় বাসিন্দাদের মিষ্টির প্যাকেট দিয়ে কর্মসূচির সূচনা করেন এলাকার তৃণমূল বিধায়ক তথা দলের জেলা সভাপতি জিতেন্দ্র তিওয়ারি। তবে তৃণমূলের এই কর্মসূচিকে কটাক্ষ করতে   ছাড়েনি বিরোধীরা।

তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, প্যাকেট থাকছে নাড়ু, শোনপাপড়ি। এই প্যাকেট দুর্গাপুর-ফরিদপুর ব্লক এবং পাণ্ডবেশ্বর ব্লকের ৩০ হাজার করে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে। এর জন্য বুথ স্তরে দলের কর্মীদের নিয়েই কয়েকটি দল করা হয়েছে। প্রতিটি দল ফি দিন পাঁচ-ছ’শো বাড়িতে যাবে, এই লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, দুর্গাপুজো থেকে ছট পুজো পর্যন্ত প্রায় ৬০ হাজার শাড়ি বিতরণেরও কর্মসূচি নিয়েছেন বিধায়ক, খবর দলীয় সূত্রে।

কিন্তু কেন এ সব কর্মসূচি? জিতেন্দ্রবাবুর দাবি, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে এলাকাবাসীকে মিষ্টির প্যাকেট দিয়ে বিজয়ার শুভেচ্ছা জানানো হচ্ছে।’’ তবে তৃণমূলের স্থানীয় নেতা-কর্মীদের একাংশের মতে, ২০২১-এর বিধানসভা ভোটের আগে জনসংযোগ ঝালাতে এই কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।

বিজেপির জেলা সভাপতি লক্ষ্মণ ঘোড়ুই বলেন, ‘‘শাড়ি ও মিষ্টি বিতরণ করে মানুষের মন পাবে না তৃণমূল।’’ সিপিএমের জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য পঙ্কজ রায়সরকারের প্রশ্ন, ‘‘শাড়ি ও মিষ্টি বিতরণের টাকা কোথা থেকে আসছে?’’ এ দিন তৃণমূলের ওই কর্মসূচিতে বিধায়কের সঙ্গেই ছিলেন জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ তথা ব্লক তৃণমূল সভাপতি সুজিত মুখোপাধ্যায়। বিরোধীদের কটাক্ষ সম্পর্কে সুজিতবাবুর দাবি, ‘‘দলের কর্মীরাই আর্থিক সহযোগিতা করছেন। দলের কর্মীরা বাড়ি-বাড়ি গিয়ে প্রবীণদের প্রণাম করে, বিজয়ার শুভেচ্ছা জানিয়ে বিধায়কের তরফে মিষ্টির প্যাকেট তুলে দেবেন।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন