সরকারি চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নাম করে ৫ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ভুয়ো নিয়োগপত্র  দিতে এসে বৃহস্পতিবার দুপুরে আরামবাগের বাসুদেবপুরে গ্রেফতার হল এক যুবক। পুলিশ জানায়, ধৃত নবকুমার মান্না হুগলির হরিপালের পাঁচগাছিয়া গ্রামের বাসিন্দা। ধৃতকে শুক্রবার আরামবাগ আদালতে পাঠানো হলে ৫ দিন পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ হয়।

পুলিশ জানায়, ধৃতের কাছে কয়েকটি সরকারি দফতরের ভুয়ো নিয়োগপত্র পাওয়া গিয়েছে। চক্রটি নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মাস চারেক ধরে নবকুমার শাসক দলের বিভিন্ন মন্ত্রী এবং নেতার ঘনিষ্ঠ দাবি করে গ্রামের চাকরি প্রার্থী বেকার যুবকদের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করে। সরকারি আফিসে চাকরির বিনিময়ে তার দাবি ছিল ৫ লক্ষ টাকা। চুক্তি ছিল হাতে হাতে ৫ লক্ষ টাকার বিনিময়ে নিয়োগপত্র দেওয়া হবে। সেই মতোই নবকুমার চাকরি প্রার্থী বেকার যুবকদের কয়েকজনকে জানায়, তাঁদের নিয়োগপত্র তার কাছে আছে। চুক্তিমতো টাকা দিলেই নিয়োগ পত্র দেওয়া হবে।

চাকরি প্রার্থী বেকার যুবকদের পক্ষে ক্ষুদিরাম কোনারের অভিযোগ, চাকরি প্রার্থীদের সামনে কয়েকজন মন্ত্রী এবং বিধায়ককে ফোন করে নিজের প্রভাবও জাহির করছিল। এরপরই তার টাকার শর্তে রাজি হন বেকার যুবকরা। ক্ষুদিরাম বলেন, “সংশ্লিষ্ট সরকারি দফতরগুলিতে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি চাকরির ব্যাপারটা সব ভুয়ো। তার ফোন করা কয়েকজন বিধায়কের ঘনিষ্ঠমহলে খোঁজ নিয়েও জানতে পারি ওইরকম কোনও নামের সঙ্গেই পরিচিত নন তিনি। তারপরেই তাকে আরামবাগে টাকা দেওয়ার কথা জানিয়ে আসতে বলি এবং পুলিশকে জানাই।’’