বাড়ি ঢুকে এক তৃণমূলনেত্রীকে লক্ষ্য করে গুলি করার চেষ্টার অভিযোগ উঠল লিলুয়ার ভট্টনগরে। মঙ্গলবার সন্ধ্যার ওই ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়।

অভিযোগ, তৃণমূল মহিলা সেলের সাধারণ সম্পাদক কবিতা হালদারের বাড়িতে ঢুকে তাঁর দিকে আগ্নেয়াস্ত্র তাক করে গুলি করতে যায় এক দুষ্কৃতী। পুলিশ সূত্রের খবর, গুলি না বেরোনোয় বড় কোনও অঘটন ঘটেনি। ওই ঘটনায় আতঙ্কিত কবিতাদেবী চিৎকার জুড়লে পাড়া প্রতিবেশীরা ছুটে আসেন। নেত্রীর দাবি, তখনই পালিয়ে যায় দুষ্কৃতী। এই ঘটনার পরেই নেত্রীর পরিবারের তরফে খবর দেওয়া হয় পুলিশে। লিলুয়া থানার পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয়।

আক্রান্ত কবিতাদেবী বুধবার জানান, ওই সন্ধ্যায় তিনি একাই বাড়িতে ছিলেন। সেই সময়ে এক যুবক বাড়ি ঢুকে তাঁর নাম ধরে ডাকাডাকি করতে থাকায় বেরিয়ে আসেন তিনি। তাঁর অভিযোগ, যুবক আগ্নেয়াস্ত্র বার করে তাঁর দিকে গুলি চালানোর চেষ্টা করে। গুলি না বেরোনোয় রক্ষা পান কবিতাদেবী। এর পরেই আতঙ্কে চিৎকার করেন তিনি। যা শুনে প্রতিবেশীরা এসে পড়লে পালায় দুষ্কৃতী। গোটা বিষয়টি দলীয় নেতাদের ফোন করে জানান তিনি। ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। যদিও বাড়ির সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পরীক্ষা করে কিছু পাওয়া যায়নি বলে পুলিশ জানিয়েছে। 

কবিতাদেবীর দাবি, “ছেলেটি আমার পরিচিত নয়। তবে ওই দিন দুপুর থেকেই কেউ বা কারা আমার গতিবিধির উপরে নজর রাখছে বলে মনে হয়েছিল। কারা আমাকে মারার চেষ্টা করছেন, বুঝতে পারছি না। এলাকার বিভিন্ন অসামাজিক কাজের প্রতিবাদ করেছিলাম। এ কারণেই হয়তো আমাকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে।’’ 

হাওড়ার পুলিশ কমিশনার গৌরব শর্মা বলেন, ‘‘ঘটনার তদন্ত হচ্ছে। কবিতাদেবীর অভিযোগ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আশপাশের সিসি ক্যামেরাও পরীক্ষা করা হচ্ছে। তবে কোনও গুলি যে চলেনি, তা স্পষ্ট।’’