অন্তর্বিভাগ চালু হয়েছে আগেই। বৃহস্পতিবার থেকে শ্রীরামপুর সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারও চালু হয়ে গেল। উদ্বোধন করেন হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির সভাপতি তথা উত্তরপাড়ার বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল। হাসপাতালের সুপারিন্টেন্ডেন্ট কমলকিশোর সিংহ বলেন, ‘‘আধুনিক প্রযুক্তির যন্ত্রপাতির সাহায্যে এখানে অস্ত্রোপচার করা হবে। অর্থাৎ, মানুষকে আরও উন্নত মানের পরিষেবা দেওয়া সম্ভব হবে।’’

শ্রীরামপুর ওয়ালশ রাজ্যের দ্বিতীয় প্রাচীন হাসপাতাল। এ শহরে দিনেমারদের উপনিবেশের সময় এই চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছিল‌। শ্রীরামপুর মহকুমা বাদেও সিঙ্গুর, হরিপাল, তারকেশ্বর-সহ বিস্তীর্ণ এলাকার মানুষ এখানে চিকিৎসার জন্য আসেন। উন্নত মানের পরিষেবার জন্য কয়েক বছর আগে ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ওই চত্বরেই রাজ্য সরকার সুপার স্পেশ্যালিটি ভবন তৈরির কাজে হাত দেয়। সাত মাস আগে এই জেলায় প্রশাসনিক কর্মসূচিতে এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাত তলা বিশিষ্ট ওই নতুন ভবনের উদ্বোধন করেন।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানান, নতুন ভবনে প্রথমে বহির্বিভাগ চালু করা হয়। ক্রমে শিশু, স্ত্রী-রোগ, প্রসূতি, অস্থি, চোখ, শল্য চিকিৎসা— প্রভৃতি অন্তর্বিভাগও পুরনো ভবন থেকে এখানে সরানো হয়। পুরনো অন্তর্বিভাগ থেকে অপারেশন থিয়েটারও নতুন ভবনে সরিয়ে আনা হল।

হাসপাতালের এক কর্তা বলেন, ‘‘যা পরিকল্পনা, তাতে শুধুমাত্র মেডিসিন বিভাগের অন্তর্বিভাগই পুরনো ভবনে চলবে।’’ শ্রীরামপুরের চিকিৎসক-বিধায়ক সুদীপ্ত রায় বলেন, ‘‘নিম্নবিত্ত পরিবারের বহু মানুষ এই হাসপাতালে আসেন। তাঁরা আধুনিক মানের পরিষেবা পাবেন। সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল পুরোদমে চালু হওয়ায় এখানকার সাধারণ মানুষের স্বপ্ন পূরণ হল।’’