• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

সাইকেলে করে বিষ্ণুর মুণ্ড নিয়ে গিয়েছিল বিশাল

Bishnu Mal
বিষ্ণু মাল। ফাইল চিত্র।

কাটা হাত-পা উদ্ধার করলেও চুঁচুড়ার রায়বেড়ের নিহত যুবক বিষ্ণু মালের ধড়-মুণ্ডর সন্ধান এখনও পায়নি পুলিশ। ঘটনার মূল চক্রী, কুখ্যাত সমাজবিরোধী বিশাস দাসের টিকিও ছুঁতে পারেনি চন্দননগর পুলিশ কমিশনারেট।

বিশালকে ধরা না গেলে বিষ্ণুর কাটা মুণ্ডুর খোঁজ মিলবে কিনা, সে ব্যাপারেও পুলিশের তদন্তকারী অফিসাররা সন্দিহান। কেননা, পুলিশ হেফাজতে থাকা ধৃত চার দুষ্কৃতীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেও এ ব্যাপারে বিশেষ সূত্র মেলেনি। কমিশনারেটের একটি সূত্রের খবর, জেরায় ধৃতেরা দাবি করেছে, বিষ্ণুকে খুন করে তাঁর কাটা হাত-পা এবং ধড় ফেলে আসার নির্দেশ দিয়েছিল সে। তবে, মুণ্ড নিজেই ফেলে আসে।

গত ১০ অক্টোবর রাতে বিষ্ণুকে বাড়ির সামনে থেকে তুলে নিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। ধৃতদের জেরা করে পুলিশ জেনেছে, বিষ্ণু তাড়াতাড়ি বাড়ি ফেরার আর্জি জানালে বিশাল তাকে জানায়, গাড়ি করে তাঁকে বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে আসা হবে। তাতে বিষ্ণু খানিকটা আশ্বস্ত হন। তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় চাঁপদানির দুষ্কৃতী কৃষ্ণ মণ্ডলের বাড়িতে। সেখানেই বিশাল তাঁকে খুন করে। তার পরে দেহ টুকরো টুকরো করে কাটা হয়।

বিশাল রাতভর বিষ্ণুর কাটা মুণ্ড আগলে কৃষ্ণের বাড়িতেই বসেছিল। ভোর হলে মুণ্ডটি নিয়ে কৃষ্ণের সাইকেলে বেরিয়ে যায়। কৃষ্ণকে বলে যায়, দিল্লি রোডের ধারে সাইকেল রেখে দেবে। কৃষ্ণ যেন সেখান থেকে সাইকেল নিয়ে নেয়। পরে অবশ্য তন্নতন্ন করে খুঁজেও কৃষ্ণ সাইকেলের হদিস পায়নি। বিশালের সঙ্গে ফোনেও যোগাযোগ করতে পারেনি। কমিশনারেটের এক কর্তা বলেন, ‘‘বিষ্ণুর উপরে সাঙ্ঘাতিক ক্রোধের বশবর্তী হয়েই যে বিশাল ওই কাণ্ড ঘটিয়েছে, ঘটনাক্রম শুনে তা স্পষ্ট।’’

তদন্তকারীরা জানান, ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করে আরও তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা চলছে। তাঁরা মনে করছেন, বিশাল ভিন্ রাজ্যে পালিয়ে গিয়ে থাকতে পারে। সে জন্য বিভিন্ন জেলার পাশাপাশি ভিন্ রাজ্যেও তার ব্যাপারে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।

বিশালের বাড়ি চুঁচুড়া শহরেই। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, বছর কয়েক আগে সে এক তরুণীকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। মেয়েটির পরিবার তা নাকচ করে দেয়। পরে মেয়েটির সঙ্গে বিষ্ণুর সম্পর্ক হয়। সেই রাগেই বিশাল রীতিমতো পরিকল্পনা করে বিষ্ণুকে নৃশংস ভাবে খুন করে বলে অভিযোগ। খুনের ধরন জেনে সাধারণ মানুষ আতঙ্কিত।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন