শেষ পর্যন্ত বিজেপিতে যোগ দিলেন আমতার চন্দ্রপুর পঞ্চায়েতের তৃণমূল বিক্ষুব্ধরা।  বিরুদ্ধ গোষ্ঠীর অত্যাচারে দীর্ঘদিন ধরে ঘরছাড়া ছিলেন তাঁরা। লোকসভা নির্বাচনের পরে গ্রামে ফিরতে না দেওয়া হলে তাঁরা বিজেপিতে যোগ দেওয়ার হুমকিও দিয়েছিেলন। আবেদন জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছেও। কিন্তু তােতও কোনও কাজ হয়নি বলে দাবি ওই বিক্ষুব্ধদের।  

মঙ্গলবার উলুবেড়িয়ার মনসাতলায় বিজেপির জেলা দফতরে দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের কাছ থেকে পতাকা নিয়ে দল বদল করেন তৃণমূলের ওই বিক্ষুব্ধরা।

দল বদলকারীদের মধ্যে রয়েছেন চন্দ্রপুর পঞ্চায়েত এলাকায় তৃণমূলের সভাপতি আসফার মিদ্দ্যা, এই পঞ্চায়েতের পদত্যাগী প্রধান মোসারফ মিদ্দ্যা, পঞ্চায়েতের উপপ্রধান-সহ আট জন পঞ্চায়েত সদস্য এবং এই পঞ্চায়েত থেকে নির্বাচিত পঞ্চায়েত সমিতির দু’জন সদস্য। তাঁদের কয়েকশো অনুগামীও এ দিন বিজেপিতে যোগ দেন। 

বিজেপিতে যোগ দিয়ে আসফার বলেন,  ‘‘ফারুক মাত্র তিনজনকে নিয়ে পঞ্চায়েত চালাতে গিয়ে মানুষের অধিকার হরণ করছে। এখন আমরাই সংখ্যা গরিষ্ঠ। খুব শীঘ্রই বিজেপির নেতৃত্বে আমরা পঞ্চায়েতের দখল নেব।’’ 

চন্দ্রপুর উলুবেড়িয়া উত্তর বিধানসভাকেন্দ্রের অধীন। বিধায়ক নির্মল মাজি বলেন, ‘‘ঘরছাড়াদের আমরা গ্রামে বসবাস করার জন্য সব ব্যবস্থা করেছিলাম। বিজেপির টাকার লোভের কাছে ওরা বিকিয়ে গিয়েছে। দুষ্কৃতীদের নিয়ে পঞ্চায়েত দখলে এলে গ্রামবাসীরাই বাধা দেবেন।’’