বিয়ের মাত্র পাঁচ মাসের মধ্যেই এক যুবতীর অস্বাভাবিক মৃত্যু হল। তাঁকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে।

শুক্রবার রাতে উত্তরপাড়া এবং হিন্দমোটর স্টেশনের মধ্যে রেললাইনের ধার থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় রিয়া হাজরা (২০) নামে ওই যুবতীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কিছুক্ষণের মধ্যেই তাঁর মৃত্যু হয়। তাঁর শ্বশুরবাড়ি স্থানীয় কোতরং এলাকায়। বাপেরবাড়ি হিন্দমোটরের রবীন্দ্রনগরে।

মৃতার বাপের বাড়ির তরফে শনিবার উত্তরপাড়া থানায় লিখিত অভিযোগে জানানো হয়েছে, বিয়ের পর থেকেই শ্বশুরবাড়িতে রিয়ার উপরে নির্যাতন হত। তাতে তিনি মানসিক ভাবে ভেঙে পড়েছিলেন। সেই কারণেই আত্মঘাতী হন। কমিশনারেটের এক আধিকারিক জানান, মন খারাপের কারণে ওই যুবতী হয়তো একাই রেললাইনের ধার ধরে হাঁটছিলেন। তখন ট্রেন‌ের ধাক্কা খান। তাঁর মৃত্যুর সেটাই কারণ, নাকি তিনি আত্মঘাতী হয়েছেন তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে এলেই বিষয়টি পরিষ্কার হবে। তাঁর স্বামী আকাশ দে’কে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। আকাশ অভিযোগ মানেননি। পুলিশের কাছে মৃতার স্বামী দাবি করেছেন, রিয়ার সঙ্গে তাঁদের সম্পর্ক ভাল ছিল। কোনও রকম অত্যাচার করা হত না। 

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, বাড়ির অমতে বিয়ে করেছিলেন রিয়া। শুক্রবার রাত পৌনে ১০টা নাগাদ রেললাইনের ধারে খাটালের পাশে পড়ে কাতরাচ্ছিলেন তিনি। স্থানীয় বাসিন্দারা তাঁকে উদ্ধার করে উত্তরপাড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতা‌লে নিয়ে যান। কিন্তু বাঁচানো যায়নি। ময়নাতদন্তের জন‌্য পুলিশ দেহটি শ্রীরামপুর ওয়ালশ হাসপাতালে পাঠায়।