মেডিক্যাল কলেজ তৈরির প্রক্রিয়া এগোল আরও এক ধাপ। প্রাথমিক ভাবে ঠিক হয়েছে উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালকেই মেডিক্যাল কলেজে পরিণত করা হবে। সোমবার হাসপাতাল পরিদর্শনে আসেন রাজ্যের ‘ডিরেক্টর অব মেডিক্যাল এডুকেশন’ প্রদীপ মিত্র। মূলত জমি দেখতে আসেন তিনি। 

প্রস্তাবিত মেডিক্যাল কলেজের জন্য জমি লাগবে ২০ একর। প্রথমে ঠিক হয়েছিল উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতাল এবং ইএসআই এই দু’টি হাসপাতালের জমি মেডিক্যাল কলেজের জন্য নেওয়া হবে। পরে ইএসআই হাসপাতালকে বাদ দেওয়া হয়। 

ঠিক হয়েছে, মহকুমা হাসপাতালে জমি আছে সাড়ে ১৫ একর। বাকি জমি নেওয়া হবে উলুবেড়িয়া-১ ব্লক কৃষি খামার থেকে। এখান থেকে মিলবে সাড়ে ৭ একর জমি। প্রদীপবাবু এ দিন মহকুমা হাসপাতাল ছাড়াও কৃষি খামারের জমিও দেখেন।

স্বাস্থ্যভবন সূত্রের খবর, প্রস্তাবিত মেডিক্যাল কলেজের ভবনগুলি করা হবে আটতলার। স্বাস্থ্যভবনের এক পদস্থ কর্তা জানান, বহুতল ভবন হওয়ার ফলে এমন‌িতেই জমির অভাব অনেকটা মিটে যাবে। 

প্রতিটি সাংসদ এলাকায় একটি করে মেডিক্যাল কলেজ গড়ার যে পরিকল্পনা কেন্দ্রীয় সরকার করেছে উলুবেড়িয়ার মেডিক্যাল কলেজটি তারই অঙ্গ। এর জন্য টাকাও দেবে কেন্দ্রীয় সরকার। এর জন্য স্বাস্থ্যভবন থেকে হাওড়া জেলা প্রশাসনের কাছে জমি চায়। জেলা প্রশাসন তখন উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতাল এবং কৃষি খামারের জমির বিস্তারিত বিবরণ স্বাস্থ্য ভবনে পাঠায়। স্বাস্থ্য ভবন থেকে সেই ফাইল যায় নবান্নে। সেখান থেকে জমির ব্যাপারে সবুজ সংকেত দেওয়া হয়। 

স্বাস্থ্য ভবন সূত্রের খবর, জমির বিস্তারিত বিবরণ এবং প্রস্তাবিত মেডিক্যাল কলেজের বিস্তারিত প্রকল্প রিপোর্ট কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে পাঠানো হবে। তারপরে মেডিক্যাল কাউন্সিল অব ইন্ডিয়া (এমসিআই)-এর প্রতিনিধিরা পরিদর্শনে আসবেন। তাঁদের সবুজ সংকেত পাওয়ার পরেই শুরু হয়ে যাবে মেডিক্যাল কলেজ তৈরির কাজ। 

জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ভবানী দাস বলেন, ‘‘এখনও পর্যন্ত সব কিছুই ইতিবাচক আছে। আশা করা যায় এমসিআই-এর পরিদর্শনে কোনও কিছু আটকাবে না।’’