শ্রমিক বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়াল হাওড়া জুটমিলে। প্রভিডেন্ট ফান্ড, গ্র্যাচুইটি, ডিএ-র দাবিতে শনিবার সকাল থেকে ওই মিলের কয়েক হাজার কর্মী কর্মবিরতি শুরু করলেন।

তাঁদের অভিযোগ, বছরের পর বছর মিল কর্তৃপক্ষ প্রভিডেন্ট ফান্ড ও গ্র্যাচুইটির টাকা দিচ্ছেন না। এমনকি, টাকা চাওয়ায় গত বৃহস্পতিবার এক শ্রমিকের হাতে কর্তৃপক্ষ চার্জশিট ধরিয়ে কারখানা থেকে বার করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ। শ্রমিকদের দাবি, ওই কর্মীকে কাজে না ফেরালে ও বকেয়া টাকা না দিলে কর্মবিরতি চলবে। এ দিন জুটমিল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে সংবাদমাধ্যমকে ভিতরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়নি।

হাওড়া জুটমিল সূত্রের খবর, সেখানে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কর্মী কাজ করেন। অভিযোগ, দাবিদাওয়া নিয়ে গত বৃহস্পতিবারই মালিকপক্ষের কাছে গিয়েছিলেন শ্রমিকেরা। এর পরেই সরল মিঞা নামে এক শ্রমিকের হাতে চার্জশিট ধরিয়ে তাঁকে বার করে দেওয়া হয়। এ দিন বকেয়া মিটিয়ে দেওয়ার দাবিতে শ্রমিকেরা সকালের শিফটে কারখানার গেটে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। কারখানাটি জি টি রোডের পাশে হওয়ায় যানজট হয়ে যায়।

এ দিন সরল বলেন, ‘‘প্রতিবাদ করলে বা টাকা চাইলেই মিল থেকে বার করে দেওয়া হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের পাওনা টাকা আটকে রেখেছে। টাকা না পাওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ চালিয়ে যাব আমরা।’’ বাবলু ঘাটা নামে এক কর্মী বলেন, ‘‘শ্রমিকেরা অবসর নেওয়ার পরে পেনশনও দেওয়া হচ্ছে না। এক কর্মী ২০১৪ সালে অবসর নিয়ে এখনও পেনশন পাননি।’’