ভিড়ে ঠাসা ওয়াটকিন্স লেনের যানবাহনের গতি থমকে গেল হঠাৎই। এক বহুতলের ছ’তলার কার্নিসে ছুরি হাতে দাঁড়িয়ে এক তরুণী চিৎকার করছেন। আর বারবার ঝুঁকে লাফিয়ে পড়ার ভঙ্গি করছেন। কিন্তু লাফাচ্ছেন না। এই দৃশ্য দেখে তত ক্ষণে ওই বহুতলের নীচে ভিড় জমে গিয়েছিল।

নীচ থেকেই বোঝা যাচ্ছিল তরুণী ছুরি নিয়ে ছাদে দাঁড়িয়ে থাকা কাউকে ভয় দেখাচ্ছিলেন। খবর পেয়ে তরুণীকে উদ্ধার করতে ঘটনাস্থলে দমকলের দু’টি গাড়ি যায়। পৌঁছে যায় গোলাবাড়ি থানার পুলিশ বাহিনীও। শেষ পর্যন্ত পুলিশি তৎপরতায় উদ্ধার করা হয় ওই তরুণীকে। শুক্রবার সকালে এমন ঘটনার সাক্ষী থাকলেন উত্তর হাওড়ার ওয়াটকিন্স লেনের বাসিন্দারা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, এ দিন সকাল প্রায় ১০টা নাগাদ ছ’তলার কার্নিসে কোনও ভাবে উঠে পড়েন ওই বহুতলেরই বাসিন্দা তরুণী। তিনি কাউকে চিৎকার করে কিছু বলতে থাকেন। স্থানীয়দের অনুমান, তরুণী ছাদে উঠে গেলে তাঁর পরিবারের কেউ পিছন পিছন যান। সম্ভবত তাঁকেই চিৎকার করে কিছু বলছিলেন তরুণী। দ্রুত খবর দেওয়া হয় পুলিশ ও দমকলে। প্রথমে দমকলের একটি ইঞ্জিন এলেও পরে আরও একটি আসে। পুলিশের আধিকারিকেরা ছাদে উঠে তরুণীর সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন। কিন্তু কাউকেই কাছে আসতে দিচ্ছিলেন না তিনি। চড়া রোদে দীর্ঘক্ষণ কার্নিসে দাঁড়িয়ে থাকায় তৃষ্ণার্ত তরুণী পুলিশের কাছে জল খেতে চান। সেই সুযোগই কাজে লাগায় পুলিশ। জলের বোতল দেওয়ার অছিলায় আচমকা ওই তরুণীর হাত ধরে টেনে তাঁকে জোর করে নামিয়ে আনা হয়।

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

এই ঘটনার পরে তরুণী ও তাঁর পরিবার কথা বলতে অস্বীকার করেন। প্রতিবেশীদের কাছ থেকে জানা যায়, বছর তিরিশের ওই তরুণী একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মী। তরুণীর বাবা পেশায় ব্যবসায়ী, কলকাতার বড়বাজারে তাঁর অফিস। পুলিশের অনুমান, তরুণী সম্ভবত মানসিক অবসাদগ্রস্ত। সে কারণেই এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন। কেন এমন ঘটল, তা জানতে তদন্ত করা হবে। সে জন্য জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে ওই পরিবারকে।