ফেসবুকে পরিচয়ের সুবাদে ভিন্‌ রাজ্যের তরুণীকে বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে সহবাস এবং পরে বিয়েতে গররাজি হওয়ার অভিযোগ উঠল নদিয়ার এক যুবকের বিরুদ্ধে।  সম্প্রতি ই-মেলে ওই তরুণী অভিযোগ জানিয়েছেন দিঘা থানায়। তাঁর অভিযোগ, দু’জনে এক সঙ্গে দিঘাতেও এসেছিলেন। 

পুলিশ সূত্রের খবর, চলতি মাসেই মেলে ওই তরুণী অভিযোগ পত্র পাঠিয়ে ছিলেন। তরুণী রাজস্থানের বাসিন্দা। তাঁর বাবা-মা সেখানেই থাকেন। তবে তরুণী কলকাতার একটি বেসরকারি কলেজে পড়াশোনা করেন। তাঁর অভিযোগ, বছরখানেক আগে নদিয়া জেলার কৃষ্ণনগর থানার রাধাকান্তপুরের বাসিন্দা এক যুবকের সঙ্গে ফেসবুকে তাঁর পরিচয় হয়েছিল। দু’জনের মধ্যে সম্পর্ক তৈরি হয়। বলে দাবি। অভিযোগে তরুণী জানিয়েছেন, ২০১৮ সালের অগস্টে তিনি এবং ওই যুবক দিঘা বেড়াতে এসেছিলেন। সে সময় তাঁকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ওই যুবক সহবাস করে বলে অভিযোগ।

তরুণী জানিয়েছেন, খুব তাড়াতাড়ি তাঁকে বিয়ে করবে একাধিক বার সহবাস করে ওই যুবক। দিঘা থেকে বাড়ি ফিরেই তাঁর পরিজন বিয়ের ব্যাপারে কথা বলার জন্য রাজস্থানে যাবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। কিন্তু কয়েক মাস কেটে যাওয়ার পরেও ওই যুবকের পরিবারের কেউ তরুণীর বাড়ির লোকেদের সঙ্গে দেখা করেননি। এমনকী, ওই যুবক তরুণীকে এড়িয়ে যেত বলেও অভিযোগ। 

তরুণীর দাবি, এ ব্যাপারে তিনি বিভিন্ন থানায় অভিযোগ জানাতে গেলেও কোনও থানা অভিযোগ নিতে চায়নি। শেষ পর্যন্ত ই-মেলে দিঘা থানায় লিখিত অভিযোগ জানান ওই তরুণী। তা পেয়েই মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য তাঁকে কাঁথি মহকুমা আদালতে ডেকে পাঠানো হয়। সরকারি আইনজীবী সূত্রের খবর, সোমবার ওই তরুণী আদালতে গোপন জবানবন্দি দেন। 

পুলিশ জানিয়েছে, তারা নদিয়ায় ওই যুবক যেখানে থাকে, সেই থানায় খবর দিয়েছে। তবে তদন্তের স্বার্থে তারা অভিযুক্তের নাম প্রকাশ করতে চায় না। কারণ, ঘটনা জানাজানি হলে অভিযুক্ত পালিয়ে যেতে পারে। কাঁথির এসডিপিও অভিষেক চক্রবর্তী বলেন, ‘‘ই-মেলে একটি অভিযোগ এসেছিল। তার ভিত্তিতে মামলা দায়ের হয়েছে। অভিযুক্তের সন্ধানে তল্লাশি চলছে। তবে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত বিশদে সংবাদমাধ্যমের কাছে কিছু জানানো সম্ভব নয়।’’