• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

প্রমীলা অভিযানে ‘মাদক মুক্ত’ গ্রাম

hooch
এলাকায় মদের বিরুদ্ধে ফ্লেক্স। নিজস্ব চিত্র

Advertisement

একটা সময়ে কোলাঘাটের পূর্ব দাসপাড়া ‘বিখ্যাত’ ছিল চোলাই এবং মাদক কারবারের জন্য। এলাকার অধিকাংশ পুরুষই মাদকাসক্ত ছিলেন বলে অভিযোগ। তাঁদের পথে আনতে উদ্যোগী হয়েছেন স্থানীয় মহিলারা। মাদক বিরোধী অভিযানে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়ে পুলিশের সহায়তায় তাঁরাই এলাকায় অভিযানে নেমেছেন। পুলিশ জানিয়েছে, প্রমীলা বাহিনীর দাপটে পূর্ব দাসপাড়ায় প্রকাশ্যে মাদক কারবার প্রায় বন্ধ।     

স্থানীয় সূত্রের খবর, বাড়বড়িশা গ্রামের পূর্ব দাসপাড়ায় অন্তত দেড়শো তফসিলি পরিবারের বাস। তাদের মধ্যে ৬০ শতাংশ পরিবারই চোলাই এবং মাদক কারবারের সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ। দাবি, প্রায় পাঁচ দশক ধরে এলাকায় ওই ধরনের কারবার চলছে। স্থানীয় মহিলারা জানাচ্ছেন অধিকাংশ পুরুষ মাদকাসক্ত হওয়ায় এলাকায় চুরি, ছিনতাইয়ের মতো অপরাধের ঘটনা হামেশাই ঘটে। মাদক কিনতে এলাকায় বহিরাগতের আনাগোনা লেগেই থাকে। পাশাপাশি, বেশি নেশা করা ফলে অনেক কম বয়সেই এলাকার পুরুষেরা মারা যাচ্ছিলেন বলেও অভিযোগ।

এ সবের সঙ্গে ‘লড়তে’ মাসখানেক আগে পূর্ব দাসপাড়ার মহিলারা গড়ে তোলেন প্রমীলা বাহিনী। পাড়ার অন্তত ২০০ জন মহিলা মাদক বিরোধী অভিযানের অঙ্গীকার পত্রে সই করেন। গড়ে তোলেন ‘কোলাঘাট হরিজন মহিলা সমিতি মদ-গাঁজা-পাতা উচ্ছেদ কমিটি’। এর পরে স্থানীয় কোলাঘাট বিট হাউস থানার সাহায্যে এলাকায় চলে একের পর এক মাদক বিরোধী অভিযান। কিছুদিন আগে হেরোইন বিক্রির অভিযোগে ওই পাড়া থেকে এক ব্যক্তি গ্রেফতারও হয়েছে।

প্রমিলা বাহিনীর সদস্যদের অধিকাংশই পরিচারিকার কাজের সঙ্গে যুক্ত। তাঁরা নিজেদের টাকায় একাধিক মাদক বিরোধী ফ্লেক্স তৈরি করে তা ঝুলিয়ে দিয়েছেন এলাকায়। ফ্লেক্সে লেখা ‘দাসপাড়ায় মদ বিক্রি বন্ধ’। প্রমীলা বাহিনীর এক সদস্য চন্দনা দাস বলেন, ‘‘আমার স্বামী প্রথম থেকেই নেশা করতেন। মাত্র ৩৩ বছর বয়সে লিভার নষ্ট হয়ে মারা যান। পরিচারিকার কাজ করে কোনও রকমে দুই ছেলেমেয়ের পড়াশোনার খরচ চালাচ্ছি। আমরা চাই এই নেশার খপ্পরে পড়ে আর কোনও পরিবার যাতে ভেসে না যায়।’’

প্রমীলা বাহিনীর দাবি, মাসখানেক ধরে কোলাঘাটের পূর্ব দাসপাড়ায় মাদক কেনাবেচা বন্ধ। কোলাঘাট বিট হাউস থানার এক পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, ওই এলাকার মহিলারা একটি কমিটি তৈরি করে মাদক বিরোধী অভিযানে নেমেছেন। পুলিশও ওঁদের সঙ্গে রয়েছে। লাগাতার অভিযানে দাসপাড়ার প্রায় পঞ্চাশ বছরের মাদক কারবার বন্ধ করা গিয়েছে।

অভিযানের জন্য প্রমীলা বাহিনীর কপালে জুটছে হুমকিও। তবে তাতে নত হতে রাজি নন চন্দনা, পূর্ণিমা, মালতিরা। তাঁদের কথায়, ‘‘আর কাউকে মাদকাসক্ত হতে দেব না।’’ 

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন