ব্রিগেডের সমর্থনে হওয়া পদযাত্রা। আর তাতেই ফের প্রকাশ্যে এল তৃণমূলের কোন্দল।

মঙ্গলবার তৃণমূলের সবং ব্লক কমিটির উদ্যোগে এক পদযাত্রা কর্মসূচি নেওয়া হয়েছিল। আগামী ১৯ জানুয়ারি কলকাতায় তৃণমূলের ব্রিগেড সমাবেশের সমর্থনে ব্লকের বারজীবন থেকে সবং বাজার পর্যন্ত এই ৫কিলোমিটার পদযাত্রা হয়। হাজির ছিলেন মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র, তৃণমূলের ব্লক সভাপতি প্রভাত মাইতি, জেলা কর্মাধ্যক্ষ অমূল্য মাইতি, সাংসদ মানস ভুঁইয়ার ভাই বিকাশ ভুঁইয়া প্রমুখ। তবে ওই কর্মসূচিতে দেখা যায়নি কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে আসা মানস অনুগামী বলে পরিচিত যুব তৃণমূলের ব্লক সভাপতি আবু কালাম বক্সকে। 

তৃণমূলের ব্লক কমিটির দাবি, পদযাত্রায় শামিল হতে সকলকেই আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। যদিও যুব তৃণমূলের ব্লক কমিটি বলছে, কোনও আমন্ত্রণ আসেনি। এই ব্লকে সাংসদ মানস ভুঁইয়ার অনুগামীদের সঙ্গে বিরোধ রয়েছে প্রভাত মাইতি ও অমূল্য মাইতিদের। গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে দুই গোষ্ঠীর বিরোধ চরমে ওঠে। বোর্ড গঠনে অনিয়মের অভিযোগ ঘিরে অমূল্য ঘনিষ্ঠ দুই তৃণমূল নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছিল তৃণমূল। তার পরেও বিরোধে দাঁড়ি পড়েনি। দিন কয়েক আগেও যুব তৃণমূলের ব্লক কমিটির পদযাত্রায় দেখা যায়নি প্রভাত-অমূল্যদের। এ বার তৃণমূলের ব্লক কমিটির পদযাত্রায় গরহাজির মানস ঘনিষ্ঠ যুব তৃণমূলের ব্লক সভাপতি আবু কালাম বক্স। 

আবু কালাম বক্স বলেন, “তৃণমূলের ব্লক কমিটি আমাদের যুব তৃণমূলের সঙ্গে কোনও আলোচনা করেনি। এমনকী পদযাত্রায় আমাকে ডাকেনি। কিন্তু ওই পদযাত্রার প্রথম সারিতে কীভাবে দল থেকে বহিষ্কৃত সনাতন দিত্যের মতো লোক থাকল সেটাই প্রশ্ন।” এ প্রসঙ্গে তৃণমূলের ব্লক সভাপতি প্রভাত মাইতির বক্তব্য, “আমি যুব তৃণমূলের ব্লক সভাপতি-সহ ওঁদের সকলকে ডেকেছিলাম। কিন্তু যুব তৃণমূলের ব্লক সভাপতি আসেননি। আর যে দু’জনকে বহিষ্কৃত বলে বলা হচ্ছে তাঁদের ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য আমি নেত্রীর কাছে চিঠি পাঠিয়েছি।”