গ্রামের যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ করে ক্রিকেট প্রতিযোগিতার আয়োজন নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠল কাঁথি ১ ব্লকের খলিসাভাঙা গ্রাম।

খলিসাভাঙা হাইস্কুলের খেলার মাঠের পাশ দিয়েই গিয়েছে খলিসাভাঙা গ্রামে যাওয়ার রাস্তা।  স্কুলের এই মাঠে শনিবার ও রবিবার ক্রিকেট প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল পাশের এড়াফতেপুরের একটি ক্লাব। অভিযোগ, খেলা চলার সময় মাঠের পাশ দিয়ে যাওয়া এই রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছিলেন খেলার উদ্যোক্তারা। রীতিমতো বাঁশ দিয়ে ঘিরে রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। যদিও আয়োজকদের  দাবি, এটা স্কুলের মাঠ। তাই স্কুলের অনুমতি নিয়েই খেলার আয়োজন করা হয়েছিল। তবে রাস্তা একেবারে বন্ধ রা হয়নি। খেলার মাঝে বিরতিতে লোকজনের যাতায়াতের সুযোগ দেওয়া হয়েছিল।

কিন্তু গোলমাল বাধে রবিবার বিকালে। খলিসাভাঙা গ্রামের কয়েকজন যুবক জানায় এ ভাবে খেলার মাঝে বিরতি পর্যন্ত অপেক্ষা করা যাবে না। তার আগেই যেতে দিতে হবে। কারণ তাঁদের  তাড়া আছে। এই নিয়ে দু’পক্ষে বচসা বাধে। খেলার উদ্যোক্তারা খলিসাভাঙার ওই যুবকদের বেদম মারধর করে বলে অভিযোগ। ঘটনায় পাঁচ জন জখম হন। তাঁদের মাজনা ব্লক প্রাথমিক হাসপাতালে চিকিৎসা করা হয়। ঘটনার পর সোমবার খলিসাভাঙা হাইস্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নবেন্দু পাল স্কুলে এলে গ্রামবাসীদের একাংশ স্কুলে ঢুকে বিক্ষোভ দেখান। খবর পেয়ে পুলিশ আসে। বিক্ষোভকারীদের নিয়ে পুলিশের উপস্থিতিতে স্কুলে সভা হয়। স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নবেন্দু পাল বলেন, “বৈঠকে সিদ্বান্ত হয়েছে আপাতত স্কুলের পড়ুয়ারা ছাড়া কেউ খেলার মাঠ ব্যাবহার করতে পারবে না। পরে সব পক্ষকে নিয়ে ফের বৈঠক হবে।’’

 বিক্ষোভকারীদের পক্ষে সুকুমার সাউ বলেন, “আগেও এই নিয়ে গোলমাল হয়েছিল। তখন ঠিক হয়েছিল গ্রামবাসী ও স্কুল এবং প্রশাসন মিলে বৈঠক হবে। তারপর এই মাঠে খেলার আয়োজন করা হবে। কিন্তু স্কুল সে সবের তোয়াক্কা না করে খেলার অনুমতি দেওয়াতেই ফের গোলমাল বাধল।’’