• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

‘ভুয়ো’ তালিকা সমাজমাধ্যমে!   

post
বিজেপি নেতার পোস্ট। নিজস্ব চিত্র

সমাজমাধ্যমে ঘুরছে তালিকা। সেখানে দেখা যাচ্ছে, আমপানে ক্ষতিগ্রস্ত হিসেবে টাকা প্রাপকদের তালিকায় নাম আছে জেলা পরিষদের সভাধিপতি উত্তরা সিংহের ভাই-সহ  কয়েকজনের। সেই নিয়েই শুরু হয়েছে তৃণমূল-বিজেপি তরজা। উত্তরার অবশ্য দাবি, ওই তালিকা ভুয়ো।  

মঙ্গলবার সমাজমাধ্যমে ওই তালিকা পোস্ট করেছেন বিজেপির পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সাধারণ সম্পাদক  রাজীব কুণ্ডু। সেটি শেয়ার করেছেন অনেকে। সেই তালিকায় গড়বেতা ৩ (চন্দ্রকোনা রোড) ব্লকের কয়েকজনের নাম, ঠিকানা, অ্যাকাউন্ট নম্বর ও ব্যাঙ্কের নাম লেখা আছে।  স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্বের দাবি, জেলা পরিষদের সভাধিপতি নিজের প্রভাব খাটিয়ে আত্মীয়দের আমপানের টাকা পাইয়ে দিয়েছেন। সেই তালিকাই কোনওভাবে বাইরে বেরিয়েছে। বিজেপির জেলা সভাপতি শমিত দাসের অভিযোগ, ‘‘ওই তালিকা আমিও দেখেছি। আমপানের টাকা নিয়ে মোচ্ছব হয়েছে। লোক দেখানো কয়েকজনকে দিয়ে বাকি টাকা তৃণমূলের নেতা-নেত্রীরাই নয়ছয় করেছেন।’’ 

যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে সভাধিপতির বক্তব্য, ‘‘আমার কোনও ভাই নেই। আর যাঁদের নাম বলা হচ্ছে তাঁদের নাম প্রশাসনের প্রাপক তালিকায় নেই। যাঁরা টাকা পায়নি, তাঁদের নাম দিয়ে ভুয়ো তালিকা বের করে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা হচ্ছে।’’ তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বলেন, ‘‘দলের কেউ যদি আমপানে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়েও টাকা নিয়ে থাকেন তাহলে ফেরত দিতে বলা হয়েছে। না হলে বহিষ্কার করা হবে। তবে বিজেপির অনেকেও কারণ ছাড়াই আমপানের টাকা নিয়েছেন। প্রশাসনকে বলব কড়া ব্যবস্থা নিতে।’’ 

গড়বেতা ৩ বিডিও অভিজিৎ চৌধুরীরও দাবি, ‘‘সমাজমাধ্যমে যেটা ঘুরছে সেটা ভুয়ো তালিকা। প্রাপকদের অনুমোদিত তালিকায় ওই নাম নেই।’’ ভুয়ো তালিকা কীভাবে সমাজ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ল, তা খোঁজ নেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন