• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

গণপিটুনির নালিশ

ফের কৃষকের বাধার মুখে ভেড়ির মালিক

Violence
ভেড়ি মালিকের লোকজনের উপরে চড়াও গ্রামবাসী। নিজস্ব চিত্র

Advertisement

কোলাঘাটের সাগরবাড় এলাকায় চাষের জমিতে জোর করে ভেড়ি তৈরি করতে এসে গণ ধোলাইয়ের শিকার হলেন ভেড়ি মালিকের লোকজন। পুলিশ এসে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায় আক্রান্তদের। এলাকার সমস্ত কৃষক রাজি না হলে সেখানে ভেড়ি হবে না বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে পুলিশের উপস্থিতিতে। ভেড়ি নিয়ে প্রতিবাদে বিডিওকে স্মারকলিপি দিয়েছে ভেড়ি বিরোধী কমিটি।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগে কোলাঘাট ব্লকের জফুলি মৌজায় অনিচ্ছুক কৃষকদের জমিতে জোর করে ভেড়ি তৈরির অভিযোগে  ভেড়ি মালিকের লোকজনকে ঘেরাও করার ঘটনা ঘটেছিল। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে ফের ভেড়ির বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগঠিত হল কোলাঘাটে।  

স্থানীয় সূত্রে খবর, কোলাঘাট ব্লকের দক্ষিণ সাগরবাড় ও সারদাবসান মৌজায় নতুন করে একটি মাছের ভেড়ি তৈরিকে কেন্দ্র করে রবিবার  সকালে হরিপদ সাহু, গয়ারাম মান্না ও মলয় গাঁতাইত নামে ভেড়ি মালিকের তিনজন সহযোগী মাঠে জমির মাপজোক করতে আসেন। চাষের জমিতে ভেড়ি তৈরি করা যাবে না বলে জমি জরিপের কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেয় স্থানীয় দক্ষিণ সাগরবাড় মাছের ঝিল বিরোধী কৃষক সংগ্রাম কমিটির লোকজন। কিন্তু ভেড়ি মালিকের লোকেরা জরিপের কাজ বন্ধ করেনি বলে অভিযোগ। তখন কমিটির লোকজন ও গ্রামবাসীরা তাদের  উপরে চড়াও হয়। ওই তিনজনকে মারধর করা হয় বলেও অভিযোগ। খবর পেয়ে এলাকায় পৌঁছে যায় কোলাঘাট থানার পুলিশ। ভেড়িমালিকের তিন জন লোককে পুলিশ আটক করে নিয়ে যায়। থানায় পুলিশের উপস্থিতিতে ঝিল বিরোধী কমিটি, স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য ও ভেড়ি মালিক পক্ষের মধ্যে আলোচনা হয়। আলোচনায় ঠিক হয়েছে, ওই মৌজার একজন কৃষকও ভেড়ির জন্য জমি দিতে রাজি না হলে সেখানে ভেড়ি তৈরি করা যাবে না।

দক্ষিণ সাগরবাড় মাছের ঝিল বিরোধী কৃষক সংগ্রাম কমিটির যুগ্ম সম্পাদক সীতারাম জানা বলেন, ‘‘২০১৯ সালে প্রায় দু’শো একর দো -ফসলি জমিতে এক ঝিল মালিক ভেড়ি তৈরিতে উদ্যোগী হন। সেই সময় আমরা অনিচ্ছুক কৃষকরা আন্দোলন কমিটি তৈরি করে জেলা প্রশাসনের  কর্তাদের স্মারকলিপি দিই। তা সত্ত্বেও রবিবার ভেড়ির মালিক লোক পাঠিয়ে জোর করে জমি জরিপ করতে আসে। তখন এলাকার চাষিরা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। ওই এলাকায় যাতে কোনওভাবেই ভেড়ি তৈরি না হয় তার জন্য সোমবার আমরা কোলাঘাটের বিডিওকে স্মারকলিপি দিয়েছি।’’ কোলাঘাটের বিডিও মদন মণ্ডল বলেন, ‘‘ঘটনাটি শুনেছি। অনিচ্ছুক কৃষকদের জমিতে ভেড়ি করা যাবে না। কোথাও জোর করে ভেড়ি তৈরির অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন