• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

রেলশহরের নিকাশি পরিকল্পনায় সমীক্ষা শুরু আইআইটি-র

Kharagpur Municipality
খড়্গপুর পুরসভা। ফাইল চিত্র।

মাসখানেক আগেই পুর ও নগরোন্নয়ন দফতর নিকাশির সুষ্ঠু পরিকল্পনার জন্য পুর কারিগরি দফতরকে নির্দেশ দিয়েছিল। পুর-নির্বাচনের আগে সেই পরিকল্পনা তৈরিতে আইআইটিকে নিয়ে পথে নামল পুরসভা।

মঙ্গলবার খড়্গপুর শহর ও গ্রামীণের বিভিন্ন এলাকায় সমীক্ষা শুরু করল পুরসভা। মহকুমাশাসক বৈভব চৌধুরী ও শহরের বিধায়ক তথা পুরপ্রধান প্রদীপ সরকারের উপস্থিতিতে এই সমীক্ষা হয়। সঙ্গে ছিলেন আইআইটির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপকেরা। পুরসভার দাবি, আইআইটিকে দিয়ে শহরের নিকাশি প্রকল্পের পূর্ণাঙ্গ পরিকল্পনা করা হবে। পুর কারিগরি দফতরের মাধ্যমে সেই পরিকল্পনা পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরে পাঠানো হবে। সেই পরিকল্পনা অনুমোদনের পরে কাজ শুরু হবে। এ ক্ষেত্রে শহরের রেল ও পুরসভা এলাকার নিকাশি নালাগুলি কোন পথে সংযুক্ত রয়েছে তা দেখা হচ্ছে। তার পরে ওই নর্দমাগুলিকে মহানালার সঙ্গে যুক্ত করে শহরের নিকাশির জলকে খাল অথবা নদীতে পাঠানো হবে।  শহরের নিকাশি মানচিত্র ধরে সমীক্ষা চালিয়ে ওই পরিকল্পনা করবে আইআইটি। 

খড়্গপুরের পুরপ্রধান তথা বিধায়ক প্রদীপ সরকার বলেন, “গোটা প্রকল্পের তত্ত্বাবধানে থাকবে পুরসভা। তবে দফতরের নির্দেশ অনুযায়ী পরিকল্পনা পাঠাবে পুর কারিগরি দফতর। আমরা চাইছি, আইআইটিকে দিয়ে এই মাস্টার প্ল্যান করাতে। তাই সেই সমীক্ষার কাজ  শুরু হল।”  

ভোট এলেই সামনে আসে নিকাশির প্রসঙ্গ। গত বিধানসভা উপ-নির্বাচনে ইস্তাহার প্রকাশ করে নিকাশির সুষ্ঠু সমাধানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তৃণমূল। ভোটে জিতে পুরপ্রধান বিষয়টি পুরমন্ত্রীর নজরে এনেছিলেন। এ দিন এলাকা পরিদর্শনে যাওয়া আইআইটির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক অনির্বাণ ধর বলেন, “শহরে নিকাশির স্থায়ী সমাধান সম্ভব। বিষয়টি প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। পুরনো একটি নিকাশির মানচিত্র পেয়েছি। আমরা সমীক্ষার পরে পুরসভাকে একটা ধারনা দেব।”

শহরের বিভিন্ন এলাকায় নিকাশি নালার জল কোথায় আটকে যাচ্ছে এ দিন তা দেখা হয়। শহরের মধ্যভাগে থাকা রেলের এলাকার জল পুরসভা এলাকা হয়ে পঞ্চায়েত এলাকার দিকে এগিয়ে যায়। এ বার কোন পদ্ধতিতে ওই নিকাশির জল শহরের উত্তর দিকের পঞ্চায়েত এলাকা হয়ে কাঁসাই নদীর দিকে নিয়ে যাওয়া যায় তা খতিয়ে দেখা হয়।  ৬ নম্বর জাতীয় সড়কের ধারে থাকা ৫টি পয়েন্ট ঘুরে দেখেন আইআইটি, পুরসভা ও পুর কারিগরি দফতরের প্রতিনিধিরা। সঙ্গে ছিলেন মহকুমাশাসক বৈভব চৌধুরী। শহরের দক্ষিণদিকেও নিকাশির জলকে কৌশল্যার কাছে একটি খালে ফেলার পরিকল্পনা রয়েছে পুরসভার। ওই এলাকাগুলি ঘুরে দেখেন সকলে। 

পুর-নির্বাচনের আগে এমন সমীক্ষা নিয়ে সমালোচনায় সরব হয়েছে বিরোধীরা। বিজেপির পুর-নির্বাচনী কমিটির আহ্বায়ক তুষার মুখোপাধ্যায় বলেন, “নির্বাচনের আগে মানুষের ‘আই ওয়াশ’ করতে তৃণমূল পুরবোর্ড এসব করছে। ভোটের পরে সব ভুলে যাবে।” 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন