শেষ বেলার প্রচারেও ভরসা তারকাতেই
তৃণমূল প্রার্থীর সমর্থনে ভগবানপুর এবং পটাশপুরে টানা ২০ কিলোমিটার রোড শো করেন অভিনেতা অঙ্কুশ হাজরা, পায়েল সরকার এবং রণিতা দাস।
TMC

কেমন আছ। মঞ্চে অঙ্কুশ, পায়েলের সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারী। নিজস্ব চিত্র

রাতে পোহালেই জেলায় শুরু হয়ে যাবে ষষ্ঠ দফার ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া। তার আগে শুক্রবার ছিল শেষ বেলার ভোট প্রচার। তাতেই এ দিন পূর্ব মেদিনীপুর ছিল তারকাখচিত। 

তৃণমূল প্রার্থীর সমর্থনে ভগবানপুর এবং পটাশপুরে টানা ২০ কিলোমিটার রোড শো করেন অভিনেতা অঙ্কুশ হাজরা, পায়েল সরকার এবং রণিতা দাস। ওই রোড শোয়ে গরমে খানিকটা অসুস্থ হয়ে পড়েন অঙ্কুশ। ফলে রোড শোয়ের মাঝপথ থেকেই তিনি চলে যান গোপালপুর বাজারের সভাস্থলে। পরে কাঁথিতে তৃণমূল প্রার্থী শিশির অধিকারীর সমর্থনে অঙ্কুশেরা রোড-শো এবং সবা করেন।

এ দিন বিকেলে বিকেলে নন্দকুমার হাইরোড থেকে নরঘাট বাজার পর্যন্ত রোড-শো করেন তমলুকের তৃণমূল প্রার্থী দিব্যেন্দু অধিকারী এবং অভিনেত্রী শতাব্দী রায়। এরপর সেখানে জনসভা করেন পরবিহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী এবং শতাব্দী রায়।  

তমলুক লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সিদ্ধার্থ নস্করের সমর্থনে ময়নার দেউলি গ্রামে জনসভা করেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। ছিলেন দলের রাজ্য নেতা রাজকমল পাঠক-সহ জেলা নেতৃত্ব। তমলুকের বামফ্রন্ট প্রার্থী ইব্রাহিম আলিও এদিন ময়নার আসনানে, কোলাঘাটে এবং শহিদ মাতঙ্গিনী ব্লকের কৃষ্ণগঞ্জ বাজারে পদযাত্রা করে শেষ বেলার প্রচার চালান।   

পাঁশকুড়া এবং কোলাঘাটে প্রচারে সামিল হয় বাম, অবাম, বিজেপি সব পক্ষই। এ দিন পাঁশকুড়ায় ভোট প্রচারে দেবের আসার কথা থাকলেও শেষ মুহূর্তে তা বাতিল হয়ে যায়। তবে কেশাপাট এবং সুরারপুল এলাকায় দেবের সভামঞ্চে অভিনেত্রী শ্রীতমা ভট্টাচার্যকে এনে ভোট প্রচার করে তৃণমূল। এদিন অল্প সময়ের জন্য পাঁশকুড়ার রাতুলিয়া ও হাউরে ভোট প্রচারে আসেন ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষ।