বিহারের নীতীশ কুমার উদ্ধার হলেন বাংলা থেকে! সৌজন্যে ফেসবুক।

এই নীতীশ কুমারের গড়ন ছিপছিপে। শ্যাম বর্ণ। বয়স ২০–২১। পুলিশ সূত্রের খবর, মানসিক ভারসাম্যহীন নীতীশের বাড়ি বিহারের বেগুসরাই জেলার ছোটাবেলিয়ায়। সপ্তাহ দুয়েক আগে ঘুরতে ঘুরতে চন্দ্রকোনা রোডের কিয়াবনী গ্রামে আসেন তিনি। অবিন্যস্ত ভাবে ঘুরে বেড়াতে দেখে স্থানীয় ক্লাবের সদস্যদের সন্দেহ হয়। তাঁরা নীতীশের সঙ্গে কথা বলে বুঝতে পারেন ওই যুবক ভারসাম্যহীন। ক্লাবের ঘরেই ঠাঁই হয় তাঁর। মাঝে একবার অসুস্থও হয়ে পড়েছিলেন নীতীশ। ক্লাবের সদস্যেরাই হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ওই যুবকের চিকিৎসা করিয়েছিলেন। 

কয়েকদিন আগে ক্লাবের সদস্য অমৃত মণ্ডল ওই যুবকের ছবি দিয়ে ফেসবুকে পোস্ট করেন। অমৃত বলেন, ‘‘ওই পোস্ট শেয়ার হতে থাকে। এক জন ওকে চিনতে পারেন। ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে ফোন নম্বর আদানপ্রদান হয়। যোগাযোগ হয় নীতীশের বাড়ির সঙ্গে।’’ বৃহস্পতিবার যুবকের বাবা ও দাদা বিহার থেকে পৌঁছন কিয়াবনি গ্রামে।

নীতীশের বাবা মঙ্গল শাহ সজল চোখে বলেন, ‘‘ফেসবুকেই জানতে পারি চন্দ্রকোনা রোডের এই গ্রামে  একটি ক্লাবে রয়েছে সে। ক্লাবের ছেলেদের ধন্যবাদ।’’ ক্লাবের সম্পাদক বিশ্বরূপ রায় বলেন, ‘‘ফেসবুক বা সোশ্যাল মিডিয়ার ভাল দিকও আছে। এর দৌলতেই তো হারানো ছেলে ফিরে পেল পরিবার।’’

আপনজনদের পেয়ে নীতীশের মুখে তখন শুধুই তৃপ্তির হাসি।