দিন কয়েক পরেই শুরু হচ্ছে হলদিয়া মেলা। মেলা শেষ হওয়ার পর প্রতি বছর মেলার কারণে দূষণ ছড়ানোর অভিযোগে সরব হন পরিবেশপ্রেমী মানুষ থেকে বিভিন্ন পরিবেশ প্রেমী সংগঠন। গত ২৫ ডিসেম্বর, ৩১ জানুয়ারি ও পয়লা জানুয়ারি হলদিয়ার বালুঘাটায় পিকনিক করার জেরে দূষণ নিয়ে সরব হয়েছিলের এলাকার মানুষ। সে সব মাথায় রেখে তাই মেলার পরিবেশ নিয়ে এ বার সতর্ক মহকুমা ও পুর প্রশাসন।

মেলা কমিটি সূত্রে জানা গিয়েছে, এই প্রথম হলদিয়া মেলায় নিষিদ্ধ হয়েছে প্লাস্টিকের ব্যবহার। সেই সঙ্গে মেলায় সমস্ত খাবার ও চায়ের স্টলে বিলি করা হবে কাগজের প্লেট, কাপ, গ্লাস। এই বিষয়ে হলদিয়া উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে প্রস্তুতি বৈঠকে কথাও হয়েছে। সেখানেই পুরসভার নিরাপত্তা কর্মী দিয়ে মেলায় অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে।

হলদিয়া পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান সুধাংশু মণ্ডল বলেন, ‘‘দূষণ এই শিল্পশহরের বড় সমস্যা। তাই মেলায় যাতে কোনওরকম দূষণ না ছড়ায়, তার জন্য আগাগোড়া সতর্ক থাকি আমরা। আইন অমান্য করলেই কড়া শাস্তি মূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’ পুরসভার তরফে জানানো হয়েছে, দূষণ রুখতে মেলায় সমস্ত খাবার ও চায়ের স্টলগুলিকে বিলি করা হবে কাগজের প্লেট, কাপ, গ্লাস। 

উল্লেখ্য, হলদিয়া উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ এবং হলদিয়া পুরসভা যৌথ ভাবে হলদিয়া মেলার আয়োজন করে। আগামি ২৫ জানুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে দশ দিন এই মেলা। রানিচকে সতীশ সামন্ত ট্রেড সেন্টারের কাছে মাঠে মেলার মঞ্চ ও মণ্ডপ বাঁধার কাজ চলছে জোরকদমে। হলদিয়ার পুর পারিষদ (বিদ্যুৎ) স্বপন নস্কর বলেন, ‘‘মেলায় সাড়ে চার হাজারের বেশি স্টল হচ্ছে। বিভিন্ন রাজ্যের স্টল ছাড়াও বাংলাদেশ, পাকিস্তানের স্টল থাকবে বলেই জানা গিয়েছে।’’

তিনি জানান, এবার মেলার বিশেষ আকর্ষণ ঐতিহাসিক ‘লাল কেল্লা’র ধাঁচে তৈরি মেলার মূল মঞ্চ। সেখানে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হবে। থাকবেন কলকাতা এবং মুম্বইয়ের শিল্পীরা। কৃষি, পশু, পাখি, ডগ-শো, যাত্রাপালাও থাকছে মেলায়। থাকছে হস্তশিল্প ও কুটির শিল্পের প্রদর্শনী। বসবে সাহিত্য, নাটকের আসর। মেলা কমিটি সূত্রে জানা গিয়েছে, এই প্রথম মেলায় যাঁরা আসবেন, তাঁদের রাতের অনুষ্ঠান দেখে বাড়ি ফেরার ব্যবস্থার পাশাপাশি রাতে থাকার বন্দোবস্তও করা হচ্ছে।