বিজেপির সঙ্কল্প যাত্রায় উল্টো জাতীয় পতাকা ঘিরে তৈরি হল বিতর্ক।

রবিবার বেলদা থেকে কেশিয়াড়ি পর্যন্ত ছিল সঙ্কল্প যাত্রা। বেলদা ব্লক অফিস সংলগ্ন এলাকা থেকে যাত্রা শুরু হয়। পদযাত্রার শুরুতে ভারতমাতা ও মোহনদাস কর্মচন্দ গাঁধী সেজে ছিল দুই খুদে। ভারতমাতার হাতে ছিল উল্টানো জাতীয় পতাকা। সেদিকে নজর ছিল না কারও। উল্টো জাতীয় পতাকা নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। নারায়ণগড় ব্লক তৃণমূলের সভাপতি মিহির চন্দ বলেন, ‘‘যারা দেশের জাতীয় পতাকা ঠিক করে ধরতে জানে না আজ তারাই নিজেদের বড় দেশপ্রেমিক বলে চিৎকার করে। যাদের আচরণ দেশদ্রোহী, তাদের কাছ থেকে এর বেশি কিছু আশা করা যায় না। গাঁধীকে যারা হত্যা করল, তারাই আজ যাত্রা করেছে। বাচ্চা ছেলেকে গাঁধী সাজিয়ে রাস্তায় হাঁটাচ্ছে। এটা লজ্জার।’’ এ বিষয়ে বিজেপির জেলা সভাপতি শমিত দাশ বলেন, ‘‘সকলের অলক্ষ্যে ঘটনাটি ঘটেছে। অনেকেই ভারতমাতা সেজেছিল। তবে ঘটনাটি অভিপ্রেত নয়। পরে আমরা ঠিক করে নিয়েছি।’’ পাশাপাশি তাঁর খোঁচা, ‘‘যাঁরা ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের ভুল নিয়ে রাজনীতি করছেন, তাঁরা ঠিক করছেন না।"

শুধু উল্টো জাতীয় পতাকা নয়, এ দিনের সঙ্কল্প যাত্রায় বিজেপির অন্দরে বিতর্ক তৈরি হয়েছে অন্য একটি বিষয়কে কেন্দ্র করে। এ দিন বিজেপির সঙ্কল্প যাত্রার পঞ্চম দিনে দেখা যায়নি বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে। গত পঞ্চায়েত ভোটে কেশিয়াড়িতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে বিজেপি। বোর্ড গঠন আপাতত স্থগিত। এ নিয়ে সমালোচনার সুরও চড়াচ্ছে বিজেপি। অথচ সেই কেশিয়াড়িতেই দিলীপের অনুপস্থিতি ঘিরে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে দলের অন্দরেই। যদিও বিজেপি সূত্রে খবর, দলের গুরুত্বপূর্ণ কাজ থাকায় দিলীপ আসতে পারেননি। সোমবার ফের কর্মসূচি রয়েছে কেশিয়াড়িতে। ওই কর্মসূচিতে থাকতে পারেন দিলীপ। এ দিন বেলদা ট্রাফিক স্ট্যান্ডে পথসভা হয়। উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি শমিত দাশ, রাজ্য নেতৃত্ব গৌতম চৌধুরী।

বেলদা থেকে কেশিয়াড়ি পর্যন্ত সঙ্কল্প যাত্রায় দিলীপ না থাকলেও তিনি এ দিন গিয়েছিলেন ডেবরায়। তার আগে বালিচকের ডুয়াতে একটি ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার সূচনা করেন তিনি। এর পরে বালিচক থেকে সঙ্কল্প যাত্রায় যোগ দিয়ে পাঁচ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে ডেবরায় পৌঁছন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। সঙ্গে ছিলেন বিজেপির জেলা সভাপতি অন্তরা ভট্টাচার্য, জেলা সহ-সভাপতি কাশীনাথ বসু প্রমুখ। সেখানে ছিল পথসভার আয়োজন। মঞ্চে এনআরসি-র পক্ষে সওয়াল করে মুখ্যমন্ত্রীর নানা নীতির সমালোচনা করেন দিলীপ।