• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

কুরবান হত্যা মামলা, পুলিশ হাজতে পাপ্পু

Qurban Shah
কুরবান শা। —ফাইল চিত্র।

পাঁশকুড়ার তৃণমূল নেতা কুরবান শা হত্যা মামলায় ধৃত মহম্মদ আজিম ওরফে পাপ্পুকে বুধবার তোলা হয় তমলুক সিজেএম আদালতে। পাপ্পুকে চারদিন পুলিশ হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন তমলুক সিজেএম আদালতের বিচারক। আগামী ২২ তারিখ পাপ্পুকে ফের তোলা হবে আদালতে।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি রাতে খড়্গপুরের পাঁচবেড়িয়া থেকে মহম্মদ আজিম ওরফে পাপ্পুকে গ্রেফতার করে খড়্গপুর টাউন থানার পুলিশ। পরদিন তাকে খড়্গপুর মহকুমা শাসকের এগজিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে তোলা হয়। তারপর থেকে তাকে খড়্গপুরেই জেল হেফাজতে রাখা হয়েছিল। পাঁশকুড়া থানার পুলিশ এদিন পাপ্পুকে নিয়ে আসে তমলুক আদালতে। কুরবান হত্যা মামলার চার্জশিটে নাম ছিল পাপ্পুর। আগেই আদালতের নির্দেশে তার অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর কুরবান শা খুনের ঘটনায় ধৃত শ্যুটার তসলিম আরিফ ওরফে রাজার বন্ধু পাপ্পু। রাজা ধরা পড়ার সে ফেরার হয়ে যায়। ১৪ ফেব্রুয়ারি রাতে পাপ্পু বাড়ি ফিরলেই পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। কুরবান হত্যা ষড়যন্ত্রের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ যোগ পাওয়া গিয়েছে বলে দাবি পুলিশের। কুরবানের আততায়ীদের খড়্গপুর থেকে পাঁশকুড়ায় আসার জন্য পাপ্পু নিজের গাড়ি দিত বলে দাবি পুলিশের। এদিন আদালতে পাপ্পুর আইনজীবী তরুণ শতপথি তার জামিনের জন্য আবেদন করেন। যদিও বিচারক সেই আবেদন খারিজ করেন। ঘটনার  তদন্তকারী অফিসার অজয় মিশ্র নতুন করে তদন্তের জন্য পাপ্পুকে নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানালে বিচারক নিরুপম কর পাপ্পুকে চারদিনের পুলিশ হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

সরকারি আইনজীবী শেখ সফিউল আলি খান বলেন, ‘‘পাপ্পুর নাম কুরবান হত্যার চার্জশিটে রয়েছে। এই ঘটনায় অভিযুক্তের জড়িত থাকার যথেষ্ট প্রমাণ পুলিশের হাতে রয়েছে। সব দিক বিচার করে বিচারক তাকে পুলিশ হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি ফের পাপ্পুকে আদালতে তোলা হবে।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন