উন্নয়ন কাজের পর্যালোচনা বৈঠক এবং দিঘায় নির্মিত কনভেনশন সেন্টারের উদ্বোধন করতে পূর্ব মেদিনীপুর সফরে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রশাসন সূত্রের খবর, আগামী ১৯ অগস্ট দিঘায় পৌঁছনোর কথা মুখ্যমন্ত্রীর। তার আগে সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পের অগ্রগতি নিয়ে শনিবারই জেলা পরিষদে একটি বৈঠক হয়। সেখানে ১০০ দিনের কাজের গতি আরও বাড়ানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে খবর।

প্রশাসন সূত্রের খবর, আগামী ২০ অগস্ট দিঘায় ‘কলকাতা মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট অথরিটি’ (কেএমডিএ) নির্মিত কনভেনশন সেন্টার-সহ জেলায় সরকারি প্রকল্পে নির্মিত রাস্তা ও ভবন উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী। পরের দিন ওই কনভেনশন সেন্টারেই তিনি সরকারি প্রকল্পে উন্নয়ন কাজের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে পর্যালোচনা করবেন মুখ্যমন্ত্রী। এর আগে গত ডিসেম্বরে মুখ্যমন্ত্রী বাজকুলে প্রশাসনিক সভার পাশাপাশি দিঘায় উন্নয়ন পর্যালোচনা বৈঠক করেছিলেন।

জেলা সভাধিপতি দেবব্রত দাস বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আগামী ২০ অগস্ট  দিঘায় কনভেনশন সেন্টার উদ্বোধন এবং ২১ অগস্ট উন্নয়ন পর্যালোচনা বৈঠক করার কথা। মুখ্যমন্ত্রীর সফরের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। জেলার উন্নয়ন প্রকল্পগুলি নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠক হয়েছে।’’ এ দিনের জেলা পরিষদে হওয়া বৈঠকে ছিলেন জেলা সভাধিপতি, জেলাশাসক, জেলা প্রশাসনের পদস্থ আধিকারিক, জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ, সব পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি এবং বিডিও। সেখানে ১০০ দিনের কাজ, বাংলা আবাস যোজনায় পাকাবাড়ি তৈরি, গ্রামীণ সড়ক ও রাস্তা নির্মাণ এবং সংস্কার কাজের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করা হয়।  ১০০ দিনের কাজে দোর আনতে পঞ্চায়েত এবং ব্লক প্রশাসনকে বিশেষ গুরুত্ব দিতে বলা হয়েছে।

জেলা পরিষদ ও প্রশাসন সূত্রের খবর, গরীব পরিবারের পাকা বাড়ি তৈরির জন্য বাংলা আবাস যোজনায় এ বছর বরাদ্দ অনেকটা বৃদ্ধি করা হয়েছে। চলতি আর্থিক বছরে জেলায় মোট ৮৩ হাজার বাড়ি তৈরির জন্য অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় অনেক বেশী। প্রকল্পে পাকাবাড়ি নির্মাণে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা ছাড়াও শৌচাগারহীন পরিবারের ক্ষেত্রে শৌচাগার তৈরির টাকা দেওয়া হয়। প্রকল্পের উপভোক্তা পরিবারের পাকাবাড়ি নির্মাণের কাজ দ্রুত করার জন্য পঞ্চায়েত ও ব্লক প্রশাসনকে উদ্যোগ নিতে বলা হয়েছে। এছাড়া গ্রামীণ সড়ক পাকা ও বেহাল রাস্তাঘাট সংস্কারের কাজেও গতি আনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ দিন পর্যালোচনা বৈঠকে জেলাশাসক পার্থ ঘোষ নির্দেশ দিয়েছেন, আবাস যোজনায় উপভোক্তা বাছাই সহ বাড়ি নির্মাণের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা বজায় রেখে কাজে গতি আনতে হবে।