• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

সহ-সভাপতির পদে অপমানিত, ইস্তফাও

TMC
প্রতীকী চিত্র

রদবদলে ব্লকের সহ-সভাপতির পদ পেয়েছেন। কিন্তু তাতেও ‘অপমানিত’ তৃণমূল নেতা। দিলেন ইস্তফাও। বুধবার তৃণমূলের ঝাড়গ্রাম জেলা সভাপতি দুলাল মুর্মু সাংবাদিক বৈঠকে জেলা ও ব্লকস্তরের নয়া কমিটি ঘোষণা করেন। দেখা যায়, ঝাড়গ্রাম ব্লক সভাপতি হয়েছেন রাজ্য সম্পাদক ছত্রধর মাহাতোর ঘনিষ্ঠ নরেন মাহাতো। আর ব্লকের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পেয়েছেন সমীর মাহাতো। সমীর ঝাড়গ্রাম ব্লকের দুধকুণ্ডি অঞ্চল সভাপতি। তবে সহ-সভাপতির পদে তিনি খুশি নন। তাই বুধবার রাতেই জেলা সভাপতি দুলাল মুর্মু, জেলার চেয়ারম্যান বিরবাহা সরেন, দুই জেলা কো-অর্ডিনেটর অজিত মাহাতো ও উজ্জ্বল দত্তের কাছে একযোগে ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন। 

দুধকুণ্ডি ১০ নং অঞ্চল তৃণমূলের যে প্যাডে সমীর ইস্তফাপত্র পাঠিয়েছেন, তার নীচে উজ্জ্বল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্ধৃতি— ‘সততার জন্য সব কিছু ত্যাগ করা যায়, কিন্তু কোনও কিছুর জন্য সততাকে ত্যাগ করা যায় না’। অবশ্য সমীর জানিয়েছেন, কিছুদিন আগে জেলা নেতৃত্ব তাঁকে জানান, তিনি ঝাড়গ্রাম ব্লক সভাপতি হয়েছেন। তাঁকে ‘মুখ’ করে রাজ্যের ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী কেন্দ্র সরকারের বঞ্চনার প্রতিবাদে লোধাশুলি, মানিকপাড়া ও বাঁধগড়ায় সভা-মিছিলের আয়োজন করানো হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সভাপতির পরিবর্তে সহ-সভাপতির পদ দেওয়ায় তিনি অত্যন্ত অসম্মানিত হয়ে পদত্যাগ করেছেন। যদিও তৃণমূলের জেলা সভাপতি দুলাল বলছেন, ‘‘সাময়িক অভিমান, আলোচনার ভিত্তিতে মিটে যাবে।’’ 

গত ৩ সেপ্টেম্বর জেলা তৃণমূলের চার নেতা-নেত্রীকে কলকাতায় ডেকে জেলা ও ব্লক কমিটির সম্ভাব্য পদাধিকারীদের নামের প্রাথমিক তালিকা নিয়ে আলোচনা করেছিলেন রাজ্য নেতৃত্ব। ওই বৈঠকের পরে জেলার পদাধিকারীদের সম্ভাব্য তালিকা জেলার চার নেতা-নেত্রীকে দেওয়াও হয়েছিল। তবে তা চূড়ান্ত ছিল না। জেলা কমিটিতে আলোচনা করে ওই প্রাথমিক তালিকা প্রয়োজনে পরিমার্জন করে রাজ্যে পাঠাতে বলা হয়েছিল। কিন্তু ৩ সেপ্টেম্বর রাতেই প্রাথমিক তালিকা ফাঁস হয়ে যায়। বিভিন্ন পদে নাম থাকা নেতাদের অনুগামীরা সমাজমাধ্যমে ছবি পোস্ট করে অভিনন্দন জানাতে শুরু করেন। সেই ফাঁস হওয়া প্রাথমিক তালিকায় ঝাড়গ্রাম ব্লক সভাপতি হিসেবে সমীর মাহাতোর নাম ছিল। গত কয়েকদিনে সমীরকে এলাকার কর্মীরা সংবর্ধনাও দিয়েছেন। সমীর-ঘনিষ্ঠদের দাবি, ৩ সেপ্টেম্বর কলকাতায় বৈঠক শেষে জেলার এক কো-অর্ডিনেটর সমীরকে ফোনে জানিয়েছিলেন, তিনি ঝাড়গ্রাম ব্লক সভাপতি হয়েছেন। 

ইতিমধ্যে হিসেব বদলে যায়। সূত্রের খবর, ছত্রধর মাহাতো রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে দর কষাকষি করে তাঁর অনুগামী নরেন মাহাতোকে ব্লক সভাপতির পদ পাইয়ে দিয়েছেন। নরেন এক সময় জনসাধারণের কমিটির সক্রিয় কর্মী ছিলেন। পরে তৃণমূলে যোগ দেন। ২০১৮ সালে পঞ্চায়েত ভোটে ঝাড়গ্রাম ব্লকের শালবনি পঞ্চায়েতের একটি আসনে প্রার্থী হয়ে নরেন হেরে যান। সমীরের ক্ষোভ, ‘‘তৃণমূলের জন্মলগ্ন থেকে দল করছি। কিন্তু এই অপমান মেনে নিতে পারছি না। যেমন অঞ্চল সভাপতি ছিলাম তেমনই কাজ করব। ব্লকের সহ-সভাপতি থাকতে চাই না।’’ 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন