• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

লকডাউনের সুফল! রাশ অপরাধে

lockdown
ছবি: পিটিআই।

করোনা আতঙ্কে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় গত ২৪ মার্চ থেকে দেশজুড়ে লকডাউন শুরু হয়েছে। যদিও তার একদিন আগে থেকেই এ রাজ্যে লকডাউন শুরু হয়ে যায়। যার জেরে যান চলাচল পুরোপুরি স্তব্ধ। কমেছে দুর্ঘটনা। গৃহবন্দি সকলেই। ফলে দিঘা থেকে হলদিয়া, কাঁথি থেকে কোলাঘাট—সর্বত্র অপরাধের পরিসংখ্যানও অনেক কমেছে। এমনকী রাজনৈতিক হানাহানির ঘটনাও গত দু’সপ্তাহে নেই বলেলেই চলে। এমনটাই দাবি পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পুলিশের। কার্যত, লকডাউনের সুবাদে কম অপরাধের সুবাদে কিছুটা স্বস্তিতে পুলিশ-প্রশাসন।

কাঁথি মহকুমা পুলিশ সূত্রে খবর, কাঁথি ও এগরা মহকুমার সমস্ত ফৌজদারি মামলার শুনানি হয় কাঁথি আদালতে। কিন্তু লকডাউন শুরুর পর থেকে হাতেগোনা কয়েকজন মাত্র অভিযুক্তকে মহকুমা আদালতে আনা হয়। এদের অধিকাংশের বিরুদ্ধে অভিযোগ গুরুতর না হওয়ায় জামিনে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি মন্দারমণি সংলগ্ন গদাধরপুর গ্রামের এক যুবককে মহিলা খুনের ঘটনায় জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। যেখানে গত অক্টোবর থেকে চলতি বছরের মার্চ মাস পর্যন্ত নিয়মিত কমপক্ষে ১০-১৫ টি নতুন মামলার শুনানি হত কাঁথি আদালতে।

শুধু তাই নয়, জেলা পুলিশ সূত্রে আরও জানা যাচ্ছে চলতি বছরের শুরুতেই হলদিয়ার দুর্গাচক থানা এলাকায় একাধিক খুনের ঘটনা ঘটেছিল। ময়নার বাকচা এবং খেজুরির বীরবন্দর এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে অব্যাহত ছিল রাজনৈতিক অশান্তি। কিন্তু লকডাউন পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষ গৃহবন্দি হওয়ায় আপাতত জেলার থানাগুলিতে এই ধরনের অপরাধ সংক্রান্ত অভিযোগ একেবারেই আসছে না বলে জেলার বিভিন্ন থানা সূত্রে জানা গিয়েছে।

পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত অভিযোগ জানানোর পৃথক সেল ছাড়াও ২৮টি থানা রয়েছে। গত দুই সপ্তাহে কোনও বড় রকমের চুরি-ছিনতাইয়ের অভিযোগ আসেনি দাবি পুলিশের। কাঁথি মহকুমা আদালতের এক আধিকারিক জানান, মাদক পাচার কিংবা অন্যান্য অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া অভিযুক্তের অপরাধ যদি সেরকম গুরুতর না হয় তবে তাকে ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে লকডাউনের জেরে জেলার অপরাধমূলক কাজকর্ম কমায় খুশি পূর্ব মেদিনীপুরের পুলিশ সুপার ইন্দিরা মুখোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, ‘‘করোনায় মোকাবিলায় গোটা জেলার পুলিশকর্মীরা ব্যস্ত। সেই প্রেক্ষাপটে জেলায় অপরাধমূলক ঘটনা যে ভাবে কমেছে তাতে মহামারী মোকাবিলায় অনেকটাই স্বচ্ছন্দে কাজ করতে পারছে পুলিশ।’’

(অভূতপূর্ব পরিস্থিতি। স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিয়ো আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, feedback@abpdigital.in ঠিকানায়। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।)

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন