• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

চোলাইয়ের বিরুদ্ধে অভিযান

মারে জখম আবগারি কর্তা-সহ ২

Representative Image
প্রতীকী ছবি।

চোলাইয়ের বিরুদ্ধে অভিযানে গিয়ে গ্রামবাসীদের হাতে আক্রান্ত হলেন আবগারি দফতরের এক আধিকারিক-সহ দু’জন কর্মী। তাঁদের মধ্যে একজন মহিলা কনস্টেবলও রয়েছেন। লাঠিসোটা নিয়ে আদিবাসী মহিলারা প্রায় দু’ঘণ্টা আবগারি দফতরের গাড়ি আটকে রাখে বলেও অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার সকালে এগরা-১ ব্লকের আলংগিরি এলাকায় আদিবাসী পাড়ার ঘটনা। আহত আবগারি আধিকারিক ও মহিলা কনস্টেবলের চিকিৎসা করানো হয় এগরা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে।

  আবগারি দফতর ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, পশ্চিম মেদিনীপুর লাগোয়া আলংগিরি বাজারের কাছে আদিবাসী পাড়া। কয়েকশো আদিবাসীর বাস সেখানে। খবর ছিল গত কয়েকদিন ধরে কুদি-আলংগিরি রাজ্য সড়কের ধারে একাধিক জায়গায় ওই আদিবাসী সম্প্রদায়ের কিছু লোক চোলাই বিক্রি করছে। অভিযোগ, চোলাই বিক্রির কারণে ওই এলাকায় সমাজ বিরোধীদের দাপাদাপি বাড়ছিল। চুরি-ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছিল। আবগারি দফতর সূত্রের খবর, পশ্চিম মেদিনীপুরের একাধিক জায়গায় চোলাইয়ের ভাটি গড়ে ওঠায় সহজে ওই পথে এগরা-সহ পূর্ব মেদিনীপুরের বিভিন্ন জায়গায় চোলাই সরবরাহ হচ্ছিল। কয়েকবার অভিযান চালালেও আগেই খবর পেয়ে যাওয়ায় কাউকে ধরা যাচ্ছিল না।

এদিনও চোলাই পাচার হচ্ছে খবর পেয়ে সকালে সাড়ে ৬টা নাগাদ ওই এলাকায় পৌঁছে যান আবগারি দফতরের এক আধিকারিক-সহ কর্মীরা। অভিযোগ, সেই সময় আদিবাসী পাড়ার কয়েকশো মহিলা এবং পুরুষ লাঠিসোটা নিয়ে তাঁদের গাড়ি ঘিরে ধরে। সেখানে কোনও অভিযান চালানো যাবে না বলে দাবি তোলে বিক্ষোভকারীরা। প্রাথমিক ভাবে পরিস্থিতি সামাল দিতে দু’জন মহিলা কনস্টেবল এবং একজন আবগারি অফিসার বিক্ষোভকারী মহিলাদের বোঝানোর চেষ্টা করে। অভিযোগ, সেই সময় বাঁশ নিয়ে আবগারি দফতরের লোকজনের উপরে হামলা চালায় আদিবাসী মহিলারা। লাঠির আঘাতে গুরুতর জখম হন এক আবগারি আধিকারিক ও একজন মহিলা কনস্টেবল। খবর পেয়ে এগরা থানা থেকে বিশাল পুলিশ বাহিনী গিয়ে তাঁদের উদ্ধার করে। আহত দু’জনের চিকিৎসা হয় এগরা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে।

এগরা অবগারি দফতরের অফিসার ইনচার্জ মহম্মদ ঈশা খান বলেন, ‘‘মঙ্গলবার সকালে আলংগিরিতে চোলাইয়ের দোকানে অভিযান চালাতে গেলে গ্রামবাসীরা প্রায় দু’ঘণ্টা আমাদের গাড়ি আটকে রাখে। মহিলাদের লাঠির ঘায়ে আমাদের এক অফিসার ও এক মহিলা কনস্টেবল জখম হয়েছেন। পরে এগরা থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে তাঁদের উদ্ধার করে।’’

এগরা থানা সূত্রে জানানো হয়েছে, ওই ঘটনায় রাত পর্যন্ত থানায় কোন অভিযোগ দায়ের হয়নি।       

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন