তিন বন্ধু মিলে বসিয়েছিল মদের আসর। সঙ্গে ছিল মাছ ভাজা। নেশার ঘোরে সেই মাছভাজার ভাগ নিয়ে শুরু হল গোলমাল, গালাগাল। তারই জেরে এক বন্ধুর গায়ে ডিজেল ছিটিয়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বাকি দুই বন্ধুর বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার রাতে কলকাতার নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজে অগ্নিদগ্ধ ব্যক্তির মৃত্যু হয়। পুলিশ নির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত দু’জনকে গ্রেফতার করেছে। মৃত ব্যক্তির নাম মোহনলাল মন্ডল(৪২)। বাড়ি কোতোয়ালি থানার দোগাছি বকুলতলা এলাকায়। ধৃতরা হলেন একই এলাকার বাসিন্দা খেরু মন্ডল ও রঞ্জন দাস। পুলিশ জানিয়েছে, দিন পাঁচেক আগে ওই তিন বন্ধু বাঁশ বাগানের ভিতরে বসে মদ খাচ্ছিলেন। রাতের দিকে গ্রামের মানুষ চিৎকার শুনতে পান। তাঁরা ছুটে এসে দেখেন, গায়ে আগুন নিয়ে ছোটাছুটি করছেন মোহনলাল। তাঁরা তাঁকে শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখান থেকে ‘রেফার’ করা হয় নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজে। বৃহস্পতিবার রাতে সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। 

কৃষ্ণনগরেই শুক্রবার প্রেমিকার সঙ্গে বিচ্ছেদ মানতে না-পেরে ব্লেড দিয়ে গলা, মাথা ও হাত কেটে আত্মঘাতী হওয়ার চেষ্টা করেন ধুবুলিয়ার শোনডাঙা-চৌগাছা এলাকার বাসিন্দা প্রশান্ত ঘোষ। তাঁকে প্রথমে ধুবুলিয়া প্রামীণ হাসপাতালে এবং সেখান থেকে শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বছর তেইশের প্রশান্তের সঙ্গে গ্রামেরই এক নাবালিকার প্রেম ছিল। মাস দুয়েক  আগে তাঁরা পালিয়ে যায়। মেয়েটির পরিবারের লোক অপহরণের মামলা করেন। জামিনে ছাড়া পেলেও অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। 

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯