মে মাসে মাধ্যমিকের ফল প্রকাশ হয়েছে। মাধ্যমিক উত্তীর্ণরা একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার পর তিন মাস ক্লাস শেষে রেজিস্ট্রেশনও শুরু হয়েছে। কিন্তু স্কুল অভাবে মুর্শিদাবাদের সাঁওতালি মাধ্যমে মাধ্যমিকে উত্তীর্ণ ৪৭ জন পড়ুয়া এখনও ভর্তি হতে পারেনি। তারা দ্রুত উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল চালুর দাবি জানিয়েছে।

সাগরদিঘির চোরদিঘি হাইস্কুলকে উচ্চ মাধ্যমিকে উন্নীত করার জন্য রাজ্য শিক্ষা দফতরে আবেদন করেছিল। ইতিমধ্যে শিক্ষা দফতর থেকে বিদ্যালয়ের অনুমোদন দিলেও উচ্চমাধ্যমিক কাউন্সিল থেকে অনুমোদন দেয়নি। যার ফলে এখনও স্কুলে উচ্চ মাধ্যমিক চালু করা যায়নি। 

শুক্রবার জেলা স্কুল পরিদর্শক পূরবী বিশ্বাস দে, চোরদিঘি হাইস্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিলীপ টুডু কলকাতায় গিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক কাউন্সিলের আধিকারিকদের সঙ্গে দেখা করেছেন।

দিলীপ টুডু জানান, ‘‘এদিন কাউন্সিল থেকে জানিয়েছে এমাসের শেষ সপ্তাহে আমাদের বিদ্যালয়ে উচ্চ মাধ্যমিক পড়ানোর অনুমতি দিয়ে দেবে। অনুমতি পেলেই পড়ুয়াদের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু করা হবে।’’

জেলা শিক্ষা দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০০৮ সালে মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘি ও নবগ্রাম ব্লকে হাতেগোনা কিছু সাঁওতালি মাধ্যম প্রাথমিক বিদ্যালয় চালু হয়।

২০১৩ সালে মুর্শিদাবাদের নবগ্রামের পাখিরাডাঙায় ও সাগরদিঘির চোরদিঘিতে দু’টি সাঁওতালি মাধ্যম জুনিয়র হাইস্কুল চালু হয়। ২০১৭ সালে চোরদিঘি জুনিয়র হাইস্কুলেই মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়ানোর অনুমোদন দেওয়া হয়। সেই স্কুল থেকে এবারে মাধ্যমিক পরীক্ষায় করেছে ৪৭ জন পাশ করেছে।