এনআরসি নিয়ে মোদী ও দিদি উভয়েই রাজনীতির ঘোলা জলে মাছ ধরছেন বলে অভিযোগ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর। মঙ্গলবার বহরমপুরে দলীয় কার্যালয়ে এক সাংবাদিক বৈঠকে অধীর বলেন, ‘‘এনআরসি নিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে চাইছে বিজেপি ও তৃণমূল। এনআরসি হচ্ছে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে, যদিও এখন তা স্থগিত আছে। কিন্তু বিজেপি’র অমিত শাহ হুমকি দিচ্ছেন বাংলায় এনআরসি চালু করবেন বলে। তাহলে বিজেপি যে ১৯টি রাজ্যে রয়েছে, সেখানে এনআরসি করছেন না কেন? আসলে রাজনৈতিক ফায়দা তোলার জন্য দু’পক্ষই জল ঘোলা করছে।’’

তাঁর দাবি, রাহুল গাঁধীর হিম্মত আছে বলেই প্রধানমন্ত্রীকে চ্যালেঞ্জ করেছেন। র‍্যাফেল যুদ্ধ বিমান কেনার জন্য ইউপিএ জমানায় ৫৩৯ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করেছিল। এখন ৪১ হাজার কোটি টাকা দিয়ে ১২৬টা ফাইটার জেট কিনছে। রাষ্ট্রীয় সংস্থা হ্যালকে বরাদ্দ না করে যুদ্ধ বিমান কেনার বরাত দেওয়া হচ্ছে অনিল আম্বানির কোম্পানিকে! যে কোম্পানি মাত্র ৮ দিন আগে রেজিস্ট্রি করেছে বলে তিনি জানান।

অধীরের কটাক্ষ, দেশের সুরক্ষার বদলে আম্বানিদের সুরক্ষায় বেশি উদগ্রীব প্রধানমন্ত্রী। এ দিন মমতার ফেডারেল ফ্রন্ট নিয়েও ব্যঙ্গ করে অধীর বলেন,  ‘‘কেউ যদি কারও বাড়ি আসেন, তাহলে কেউ দেখা করেন না? রাহুল গাঁধী, সনিয়া গাঁধী কী কালীঘাটের বাড়িতে গিয়েছেন? অধীর বলছেন, ‘‘বিজেপি জুজু দেখিয়ে কাজ হাসিল করতে চাইছেন কালীঘাটের দিদি।’’ মানুষ সব বোঝে।  বিজেপি বিরোধী জোটের নেতৃত্ব দেবে কংগ্রেসই।’’