সকাল তখন ১০টা। টোটোর মাথায় বাঁধা মাইকে শোনা যাচ্ছে, ‘‘বানে ভেসে গিয়েছে কেরল। আপনারা যে যেমন পারেন, সাহায্য করুন।’’ গলাটা জড়ানো। শুনেই মনে হচ্ছে বক্তা অসুস্থ। কিন্তু এ ভাবে কে প্রচার করছেন?

কেউ বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এলেন, কেউ উঁকি দিলেন জানলা দিয়ে। কেউ আবার চায়ের কাপ দোকানে রেখে উঠে দাঁড়ালেন। সোমবার সকালে ডোমকল অবাক হয়ে দেখল, অসুস্থ শরীর নিয়েই ডোমকলের বিধায়ক আনিসুর রহমান পথে নেমেছেন। একা।

ডোমকলের আজিজুল ইসলাম মণ্ডল বলছেন, ‘‘আনিসুর সাহেব অসুস্থ বলেই শুনেছিলাম। কিন্তু এ দিন তিনি কেরলের জন্য যে ভাবে পথে নেমেছিলেন তাতে আমরা অবাক।’’ অবাক তাঁর মতো অনেকেই। কারণ, গত বেশ কয়েক বছর ধরে ভুগছেন আনিসুর। সে ভাবে তাঁকে আর বাইরেও বেরোতে দেখা যায় না। এ দিনের প্রচার নিয়ে তৃণমূলের কিছু লোকজন টিপ্পনিও কেটেছেন। বলেছেন, ‘‘সিপিএমের কী অবস্থা! অসুস্থ বিধায়কের পাশেও কাউকে দেখা যাচ্ছে না।’’

যা শুনে মৃদু হাসছেন আনিসুর। বলছেন, ‘‘কে কী বলল, তাতে আমার কিছু যায় আসে না। তবে টিভিতে, সংবাদপত্রে কেরলের অবস্থা দেখে আর স্থির থাকতে পারলাম না। একাই বেরিয়ে পড়েছি। কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু যতক্ষণ পারছি, কাজটা করছি। যে যা সাহায্য করছেন তা পাঠিয়ে দেব কেরলেই। এক জন ভিখিরিও দু’টাকা দিয়েছেন। ভাবতে পারেন!’’