• নিজস্ব সংবাদদাতাx
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বৃষ্টি উপেক্ষা করেই ‘হাউসফুল’ সিনেমা হল

murshidabad salman film

—নাম অর উমর বলো।
—ভারত।
—ভারত ক্যায়া।
—মেরা বাবুজি নে দেশ কে নাম পর মেরা ভি নাম রাখ্খা হ্যায়। আগর উস কী আগে অর পিছে সারনেম লাগা দুঁ তো কদর ও ইজ্জত দোনোহি ছোটা পড় যাতা হ্যায়।
‘ভারত’ সিনেমাতে ক্যাটরিনা কাইফের প্রশ্নের জবাবে সলমন খানের ওই ডায়ালগে সিনেমা হল জুড়ে বয়ে গিয়েছে হাততালির ঝড়। তার আগে সিনেমার শুরুতে আগুনের রিংয়ের গোলার ভেতর দিয়ে মোটরবাইক নিয়ে ঝাঁপ দেওয়ার দৃশ্য যে উন্মাদনা তৈরি করে দিয়েছিল দর্শক-মনে, পরের আড়াই ঘণ্টা চেটেপুটে উপভোগ করেছেন সেই দর্শক। সিনেমা শেষে সেই দর্শককুল হই-হুল্লোড় করতে করতে হল ছেড়ে বেরিয়েছেন।
বুধবার ইদ উপলক্ষে মুক্তি পেয়েছে ভারত।

রমজান সম্পর্কে এ তথ্যগুলি জানতেন? 

সাধারণত শুক্রবার সিনেমা মুক্তি পেলেও ইদের দর্শক টানতে এ দিন বিভিন্ন সিনেমার শুভমুক্তি হয়েছে। সেই মতো জেলার বিভিন্ন হলে বদলে গিয়েছে সিনেমার পোস্টার। মাল্টিপ্লেক্স-সহ জেলার ৬টি সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে ভারত— বহরমপুর, কান্দি, জিয়াগঞ্জ, হরিহরপাড়া, ডোমকলে।
বহরমপুরের সিলভার স্ক্রিনের দায়িত্বপ্রাপ্ত রাজেশ শেখ বলছেন, ‘‘মঙ্গলবার থেকে আগাম টিকিটের বুকিং শুরু হয়েছিল। এ দিন চারটে শো হাউসফুল হয়েছে। এমনকি আগামী রবিবার পর্যন্ত কোনও টিকিট নেই।’’ রাজেশ জানান, এ দিন সিনেমা চলাকালিন দর্শকদের বার বার হাততালি দিতে শোনা গিয়েছে। উল্লাসে ফেটে পড়েছেন দর্শকেরা। সিনেমা শেষে তাঁরা হুল্লোড় করতে করতে বেরিয়েছেন হল থেকে। 
এ দিন সকাল থেকেই আকাশের মুখ ছিল ভার। কালো মেঘে আকাশ ঢাকা ছিল। কয়েক দফায় বৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু সেই বৃষ্টি উপেক্ষা করে সিনেমা হলগুলিতে ভিড় করেন সব বয়সী মানুষ। তার মধ্যে কিশোর-কিশোরী ও তরুণ-তরুণীদের ভিড় ছিল বেশি। এ দিন যেমন বেলডাঙার সিনেমা হলে ইদ উপলক্ষে চারটি শো হয়েছে। প্রথম শোয়ে ছিল জিৎ ও কোয়েল জুটির ছবি ‘শূন্য থেকে শুরু’। পরের তিনটি শোয়ে ভারত। দর্শক সংখ্যার বিচারে অবশ্য এগিয়ে ছিল ভারত-ই। শুধু বেলডাঙা নয়, পড়শি নওদা থেকেও দর্শকেরা ভিড় করেন। সিনেমা হল পরিচালকদের অন্যতম জয়নাল আবেদিন বলছেন, ‘‘প্রতি বছর ইদের দিন হাউসফুল থাকে। এ দিনও মিতালি টকিজের এক হাজার আসন ভরা ছিল সব শোয়ে।’’
জিয়াগঞ্জের লক্ষ্মী টকিজেও এ দিন সকাল থেকেই ছিল ভিড়। মেঘ-বৃষ্টিকে উপেক্ষা করেই জিয়াগঞ্জে সিনেমা দেখতে ভিড় করেন লালগোলা, ভগবানগোলা, রানিতলা ও লালবাগের দর্শক। লালবাগের আমির শাহ খান। তিনি বলছেন, ‘‘ভাইজানের সিনেমা! হাতছাড়া করতে চাইনি।’’ জিয়াগঞ্জ লক্ষ্মী টকিজের ভারপ্রাপ্ত কর্মী রীতেশ জৈন বলেন, ‘‘রেকর্ড সংখ্যক ভিড় হয়েছে।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন