কল্যাণী শহরের এক প্রান্তে বহু বছর আগে তৈরি হয়েছিল সরকারি ইটভাটা। মূলত গ্রামীণ মাঝেরচর এলাকায় ওই ভাটার ইটেই তৈরি হত সরকারি নানা ভবন। এখন আর সেই ভাটা চালু নেই। কিন্তু অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে বিঘের পর বিঘে জমি। ওই জমির একাংশ জবরদখলের অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে। 

সোমবার কল্যাণীর মহকুমাশাসক ও মহকুমা ভূমি ও ভূমি সংস্কার আধিকারিককে লিখিত অভিযোগ জািনয়েছেন সম্প্রতি বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়া নেতা কৃষ্ণ মাহাতো। তাঁর অভিযোগ, লোকসভা ভোটের পর থেকেই বিজেপি নেতা রাজীব কীর্তনিয়ার নজরে পড়েছিল ওই জমি। মূলত রাজীবের নেতৃত্বেই ওই জমি দখল ও লোকজনের মধ্যে বিক্রি শুরু হয়েছে। গত কয়েক মাসের মধ্যে ওই জমিতে বিজেপির লোকজন কয়েকটি বাড়ি বসিয়েছে। নিজেদের কার্যালয় তৈরি করেছে। বছর চারেক আগে ওই সরকারি জমিতে একটি মন্দিরও হয়েছিল। রাজীবের মদতে ওই মন্দিরের নাম করে তার চারপাশে অনেকটা জায়গা দখল করা হয়েছে। 

স্থানীয় বাসিন্দা পল্টু মুর্মুর দাবি, ‘‘লোকসভা ভোটের পর বিজেপির লোকেরা শহরের বহু জায়গা দখল করেছে। এখন নজর পড়েছে ইটভাটার জমির উপর। শুনছি, ওখানে সরকার আবাসন প্রকল্প করবে। মাফিয়া জমি দখল করলে তা কী করে সম্ভব হবে?’’  রাজীব অবশ্য পাল্টা দাবি করছেন, ‘‘তৃণমূলের লোকজনই এক সময় ওই জমি দখল করেছিল। এখন আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে।’’