লোকসভা নির্বাচনের ভরা বাজারে মুর্শিদাবাদের দু’টি বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনও ঘোষণা করে দিল নির্বাচন কমিশন।

আগামী ১৯ মে কান্দি এবং নওদা, এই দুই কেন্দ্রে উপনির্বাচন। প্রকাশ্যে স্বীকার না করলেও এত দ্রুত কোনও দলই ফের ভোট যে চাইছিল না তা জেলা নেতাদের কথাতেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। জেলার এক তৃণমূল নেতার কথায়, ‘‘আসলে সব দলই লোকসভা ভোটের ফলাফল যাচাই করে  দেখে নিতে চাইছিল। কিন্তু নির্বাচন কমিশন এ বার লোকসভার  নির্বাচনের শেষ দিনেই উপনির্বাচনর দিন ঘোষমা করে বসল। ফলে, সব দলকেই শক্তি পরীক্ষায় ফেলে দিল। ২৩ মে লোকসভার ভোটের সঙ্গে দুটি উপনির্বাচনের ও ফলাফল  বের হবে।

কান্দি ও নওদার  তৃণমূল বিধায়ক  অপূর্ব সরকার ও আবু তাহের খান  কংগ্রেস ছেড়ে সদ্য তৃমমূলে যোগ দিয়ে বহরমপুর ও মুর্শিদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী হয়েছেন। দলত্যাগ বিরোধী আইন এড়াতে তাঁরা কংগ্রেস বিধায়কের পদ ছাড়ায় ওই আসন দু’টি শূন্য হয়েছে।

এত তাড়াতাড়ি উপনির্বাচনের দিন ধার্য করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জেলা তৃণমূলের সভাপতি সুব্রত সাহা। তাঁর কটাক্ষ, “আসলে বিজেপি তো এর পর লোক খুঁজে পাবে না, তাই বিজেপি’র কথা মতো নির্বাচন  কমিশন সাত তাড়াতাড়ি উপনির্বাচনের দিন ঘোষণা করে দিল।’’ তবে তিনি দাবি করেন, তৃণমূল তৈরি। ওই দু’টি আসনেই প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা 

হবে অচিরেই।

স্থানীয় প্রার্থী যে তাঁর পছন্দ, সে ব্যাপারে তিনি  ইঙ্গিতও দিয়ে রেখেছেন। আর এই  ইঙ্গিত পেয়েই অনেকেই এখন প্রার্থীর জন্য তদ্বির শুরু করে দিয়েছেন দলীয় নেতাদের কাছে। দল চাইলে বর্তমান জেলাপরিষদের সভাধিপতি মোশারফ হোসেন মণ্ডল নওদা আসনের জন্য প্রার্থী হতে রাজি আছেন বলে খোলাখুলি তিনি জানিয়েছেন। তবে তাঁর সঙ্গে আবু তাহের খানের ‘মধুর’ সম্পর্কের কথা  নিয়ে দলের মধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে। এ ছাড়াও নওদা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি বিশ্বজিৎ ঘোষ, পুর্ত কর্মাধ্যক্ষ জুলফিকার আলি ভুট্টো,অভিষেক বন্দোপাধ্যায় ঘনিষ্ঠ প্রাক্তন প্রার্থী মাসুদ করিমের নাম নিয়েও জোর চর্চা শুরু হয়েছে।

অন্য দিকে  কান্দিতে  তৃণমূলের অন্দরে দলের কান্দি মহকুমা সভাপতি গৌতম রায়, প্রাক্তন জেলা নেতা উজ্জ্বল মণ্ডলের নাম নিয়েও জল্পনা শুরু হয়েছে।  

দলের অভ্যন্তরের খবর,  অপূর্ব সরকার গোষ্ঠী আবার এই দুজনকেই মেনে নিতে চাইছেন না। তাঁদের পছন্দ কান্দির প্রাক্তন  উপ পুরপ্রধান গুরুপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। ডেভিডের দাদা পার্থপ্রতিম সরকার  ও দেবাশিস চট্টোপাধ্যায়কে নিয়েও  দলের মধ্যে কথা  শুরু  হয়েছে ।  

অন্য দিকে কান্দিতে কংগ্রেস প্রার্থী হিসাবে অধীর অনুগামী নেতা সফিউল আলম খান বনু ও তাপস দাসগুপ্তের নাম উঠেছে। নওদার  কংগ্রেস প্রার্থী  হিসাবে প্রাক্তন পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সাহাবুদ্দিন মোল্লা, ব্লক সভাপতি সুনীল বিশ্বাসের নাম নিয়ে কংগ্রেসের অন্দরে চর্চা চলছে। তবে অধীর চৌধুরী যাঁকে চাইবেন তিনিই ওই দুই কেন্দ্রে প্রার্থী হবেন বলে কংগ্রেস সূত্রে জানা গিয়েছে।