বিয়ের দাবিতে ধর্নায় বসলেন এক তরুণী। সার জিনা খাতুন নামে বছর চব্বিশের ওই তরুণী রবিবার ‘প্রেমিক’-এর বাড়ির দরজার সামনে ধর্নায় বসেন। কালীগঞ্জের বড়চাঁদঘর শিকারিপাড়ার ঘটনা। ঘটনার কথা জানাজানি হতে এলাকার লোকজন ভিড় জমান। সার জিনা জানান, প্রথমে ‘প্রেমিক’-এর বাড়ির লোকজন তেমন গা করেনি। তখন তিনি স্থানীয় মীরা পুলিশ ফাঁড়িতে যান। পরে সেখান থেকে গ্রামে ফিরে গিয়ে ফের ধর্নায় বসেন। 

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গ্রামেরই যুবক রাজু শেখের সঙ্গে সার জিনার দীর্ঘদিনের ঘনিষ্ঠতা। সার জিনা জানান, স্কুল পড়ার সময় তাঁদের মধ্যে সম্পর্ক হয়। দু’জনে কলেজেও ভর্তি হন। পড়ে রাজু পড়াশোনা ছেড়ে দিয়ে বাইরে কাজে যান। তাঁর বাড়িতে রাজুর যাতায়াতও আছে। সার জিনার দাবি, ফাঁড়িতে গেলে পুলিশ অভিযোগ জানাতে বলে। কিন্তু অভিযোগ জানালে রাজুর ক্ষতি হতে পারে ভেবে অভিযোগ জানাননি। তিনি বলেন, ‘‘তবে রাজুর বাড়ির লোকেরা তাঁর সঙ্গে বাজে ব্যবহার করেছেন। মারধরও বাকি রাখেনি।’’

সার জিনার সঙ্গে প্রেমের কথা স্বীকার করেছেন রাজু শেখ। তবে তাঁর দাবি, ‘‘আমাদের মধ্যে সম্পর্ক ছিল ঠিকই। তবে তা স্কুলে পড়ার সময়। তার পর ওর সঙ্গে একাধিক ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল। তা জানতে পেরে আমাদের সম্পর্ক ভেঙে যায়। হঠাৎ করে আজ সকালে দেখি আমার বাড়ির সামনে এসে বসে রয়েছে।’’ 

পুলিশ জানিয়েছে, এই বিষয়ে লিখিত অভিযোগ কারার কথা বলা হয়েছিল ওই তরুণীকে। তিনি রাজি হননি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগেও একই দাবিতে কালীগঞ্জে এক তরুণী ধর্নায় বসেছিলেন।