হোটেল কর্মী খুনের ঘটনার পরে কেটে গিয়েছে আটটা দিন। এখনও পর্যন্ত খুনের কিনারা হয়নি। পুলিশ কাউকে গ্রেফতারও করতে পারেনি। এ দিকে, ওই ঘটনার জেরে দোকান বন্ধ থাকায় ব্যবসা শিকেয় ওঠায় ক্ষুব্ধ জনা দশেক ব্যবসায়ী।

বুধবার বহরমপুর বাসস্ট্যান্ড লাগোয়া প্রাঙ্গণ মার্কেটের তিন তলায় ওই হোটেল কর্মী আশিস মালের শ্বাসনালি কাটা অবস্থায় দেহ উদ্ধার করে বহরমপুর থানার পুলিশ। তার পর থেকেই সেই জায়গা পুলিশ ফিতে দিয়ে ঘিরে রাখায় ৮-১০টি দোকান ঘর বন্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে।

ব্যবসার ক্ষতি হওয়ায় দোকানের মালিক একজোট হয়ে বুধবার বহরমপুর থানার পুলিশের সঙ্গে দেখা করে দ্রুত দোকান ঘর খোলার ব্যাপারে আর্জি জানান। ওই ব্যবসায়ীদের দাবি, দুষ্কৃতীদের পায়ের ছাপের নমুনা সংগ্রহ করার জন্য ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ আসার কথা জানিয়ে পুলিশ ওই জায়গা ঘিরে রেখেছে। কিন্তু ঘটনার আট দিন পরেও ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ এখনও আসেনি। এদিকে দোকান ঘর বন্ধ থাকায় তাঁদের ব্যবসা শিকেয় উঠেছে।

জেলার পুলিশ সুপার মুকেশ কুমার বলেন, ‘‘ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ আসা না আসার সঙ্গে ওই জায়গা ঘিরে রাখার কোনও সম্পর্ক নেই। তদন্তের স্বার্থে ওই জায়গা পুলিশ ঘিরে রেখেছে। তবে ঘিরে রাখা জায়গা বাদ দিয়ে ব্যবসায়ীদের অন্য কোনও অসুবিধে হলে আমরা তার সমাধানের চেষ্টা করব।’’ তবে তদন্ত প্রক্রিয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত ওই জায়গা ঘেরা থাকবে বলেই জানান পুলিশ সুপার।