• সন্দীপ পাল
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

নেতা বদলে কাজিয়া ব্লক কংগ্রেসে

congress

নির্বাচনের আগে নাকাশিপাড়ার ব্লক কংগ্রেসের সভাপতি পরিবর্তন করে বিপাকে পড়েছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব। এর ফলে ওই ব্লকে কংগ্রেসের অন্তর্দ্বন্দ্ব সামনে এসেছে বলে মনে করছেন দলের নেতা-কর্মীদেরই একাংশ।

সভাপতি নির্বাচনের পর জল্পনা চলছে দলের ভিতরেই। দলীয় সূত্রের খবর, নাকাশিপাড়ার বর্তমান সভাপতি আনিসুর রহমানের সঙ্গে বিশেষ যোগাযোগ নেই নাকাশিপাড়া ব্লক কংগ্রেসের। আনিসুর জেলা নেতৃত্বের ঘনিষ্ঠ। কিন্তু ব্লকে নেতা-কর্মীদের মধ্যে তাঁর গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

কেন্দ্রের নির্দেশে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি পরিবর্তনের কিছু দিনের মধ্যে জেলা কংগ্রেস সভাপতি পরিবর্তন করা হয়। তার পরে নদিয়ার দু’টি ব্লক— কালীগঞ্জ ও নাকাশিপাড়ায় ব্লক সভাপতির নাম ঘোষণা করা হয়। প্রসঙ্গত, কালীগঞ্জে দীর্ঘ দিন ধরে কংগ্রেসের সভাপতি পদে কেউ ছিলেন না। নাকাশিপাড়ায় গত আট বছর ধরে কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন অনিল বারুই। তাঁর জায়গায় নাকাশিপাড়ায় ব্লক যুব কংগ্রেসের সভাপতি করা হয় আনিসুর রহমানকে। আর নাকাশিপাড়ায় এই ব্লক সভাপতি পরিবর্তন মেনে নিতে পারছেন না ব্লকের অনেক নেতা-কর্মীই।

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

দলের নেতাদের একাংশ জানিয়েছেন, ব্লক সভাপতি পরিবর্তন করতে হলে জেলা নেতৃত্বকে প্রথমে কারও নাম মনোনীত করে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির কাছে পাঠাতে হয়। সেখান থেকে অনুমতি পেলে তিনি ব্লক সভাপতি হিসাবে গ্রাহ্য হন। এটি সংগঠনের নিয়ম। আনিসুরের ক্ষেত্রে এর কিছুই মানা হয়নি বলে অভিযোগ। নির্বাচনের আগে সভাপতি পরিবর্তন নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

সভাপতির নাম ঘোষণা হওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে বুধবার বিকেলে বেথুয়াডহরি স্টেশনের কাছে প্রাক্তন সভাপতি অনিল বারুইয়ের নেতৃত্বে অঞ্চল সভাপতিদের নিয়ে সাংগঠনিক সভা আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে উপস্থিত ছিলেন জেলার কার্যকারী সভাপতি পশুপতি অধিকারী-সহ অন্য নেতারা। সেই সভা থেকে কর্মীদের উদ্দেশ্যে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়, ব্লকের সভাপতি থাকবেন অনিলই। অনিল বলেন, ‘‘আমরা বিষয়টি প্রদেশ কংগ্রেসকে জানিয়েছিলাম। উনি জানিয়েছেন, নির্বাচনের আগে এই ভাবে সভাপতি পরিবর্তন করা যাবে না। তাই আমি ছিলাম আমি থাকব।’’

অন্য দিকে, বর্তমান সভাপতি আনিসুর রহমান ব্লকের অন্য নেতা কর্মীদের নিয়ে বেথুয়াডহরি নিচুবাজারের কাছে কংগ্রেস পার্টি অফিসের উদ্বোধন করেন। সেই অনুষ্ঠানে প্রাক্তন সভাপতিকে দেখা যায়নি। এলাকার মানুষের একাংশের বক্তব্য, এই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের প্রভাব পড়তে পারে লোকসভা ভোটেও।

আনিসুর বলেন, ‘‘আমাকে জেলা থেকে যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, সেই দায়িত্ব পালন করছি। আমি সবাইকে নিয়ে কাজ করতে চাই। জেলা যা বলবে সেটাই মেনে চলব।’’ গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের অভিযোগ অবশ্য উড়িয়ে দিয়েছেন জেলা কংগ্রেসের সভাপতি জ্যোতির্ময় ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, ‘‘সকলেই কংগ্রেসের কর্মী। যদি কোনও সমস্যা হয়, তা কথা বলে মিটিয়ে নেওয়া হবে। আর সভাপতি হিসাবে আনিসুর নির্বাচিত হয়েছেন, তাই উনি থাকছেন।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন