নোটের মতো বাতিল হবে মোদী: মমতা
তখন শ্রীলঙ্কায় বোমা বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে। রবিবার দুপুরে বনগাঁ কেন্দ্রের গয়েশপুরের টাউন ক্লাবের মাঠে জনসভায় এসে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন হতাহতদের উদ্দেশ্যে শোকপালনের কথা।
Mamata

দলীয় প্রার্থীর সমর্থনে পদযাত্রা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। রবিবার শান্তিপুরে। ছবি: প্রণব দেবনাথ

তখন শ্রীলঙ্কায় বোমা বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে। রবিবার দুপুরে বনগাঁ কেন্দ্রের গয়েশপুরের টাউন ক্লাবের মাঠে জনসভায় এসে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন হতাহতদের উদ্দেশ্যে শোকপালনের কথা।

বাকি পুরোটাই অবশ্য ছিল কামান গর্জন। বিজেপিকে লক্ষ্য করে মমতা বলেন, ‘‘নির্বাচনের আগে কিছু লোক এখন বসন্তের কোকিলের মত চলে এসেছেন। ওঁদের সঙ্গে বাংলার কোনও সম্পর্ক নেই। ওঁরা বাংলার মাটি চেনেন না।’’ সেই সঙ্গেই এক নিঃশ্বাসে তিনি জানিয়ে গিয়েছেন, জেলার জন্য কী কী করেছেন। কল্যাণীতে এমস, ত্রিপল আইটি, হরিণঘাটা ডেয়ারির আধুনিকীকরণ ছাড়াও জেলা জুড়ে যুব আবাস, কৃষ্ণনগরে কন্যাশ্রী বিশ্ববিদ্যালয় তৈরির কথা বলেছেন। শান্তিপুর ও কালনার মধ্যে সেতু তৈরি হচ্ছে বলেও তিনি আশ্বাস দেন।

প্রত্যাশিত ভাবেই মমতার কথায় এসেছে নোটবন্দি থেকে জাতীয় নাগরিক পঞ্জির প্রসঙ্গ। এসেছে ধর্মীয় তাস ব্যবহার প্রসঙ্গও। মমতা বলেন, ‘‘বাংলায় দুর্গাপুজো, কালীপুজো, সরস্বতী পুজো হয়। মোদী বলছে, মমতা তো আপনাদের বাংলায় দুর্গাপুজো করতে দেন না। হরিদাস! বাংলার কালচারই জানে না। এক লক্ষের উপরে দুর্গাপুজো হয় বাংলায়।’’ প্রশ্ন ছুড়ে দেন, ‘‘তোমরা কে হরিদাস? হঠাৎ করে এসে বলছ, এ কাপড় পরবে না, আমিষ খাবে না!’’

দুপুর পৌনে ৩টে নাগাদ রানাঘাট কেন্দ্রের হবিবপুরে ছাতিমতলায় মঞ্চে হাজির হন মমতা। নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহকে ‘জগাই-মাধাই’ বলে উল্লেখ করে আক্রমণ শানান তিনি। বলেন, ‘‘প্রত্যেকের অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা কোথায় গেল? পাঁচ বছরে দশ হাজার যুবকের কর্মসংস্থান হয়নি। বরং দু’কোটি কর্মীর চাকরি গিয়েছে। ৫০ হাজার বিএসএনএল কর্মী বেতন পাচ্ছেন না। ৪৫-৫০ বছর কাজ করার পরে জেট এয়ারওয়েজের কর্মীদের চাকরি যেতে চলেছে!’’ 

মোদীর প্রতি তাঁর কটাক্ষ, ‘‘প্রধানমন্ত্রী হোমওয়ার্ক করেন না। কোন রাজ্যে কী হচ্ছে খবর রাখেন না। তিনি নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত। সিনেমা করছেন। ব্যবসা করছেন। নেহরুর কোট নিজের নামে চালাচ্ছেন। এ বার নমো চপ্পল পাওয়া যাবে!’’ সেই সঙ্গেই নোটবন্দির দিনগুলি মনে করিয়ে দিয়ে মমতা বলেন, ‘‘হঠাৎ রাতে নোট বাতিল করে দিল। মানুষ বিপদে পড়ে গেল। ব্যবসা, কৃষির ক্ষতি হল। মহম্মদ বিন তুঘলকের মতো সিদ্ধান্ত!’’ তাঁর দাবি, ‘‘১২০০ কৃষক আত্মহত্যা করেছেন। ক্ষুদ্র শিল্প বন্ধ হয়ে গিয়েছে। নোট বাতিলের জন্য ওরা নরেন্দ্র মোদীকে বাতিল করে দেবে।’’ জাতীয় নাগরিক পঞ্জি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘অসমে মানুষ ৪০ লক্ষ মানুষ বিতাড়িত হতে চলেছেন। এখানে এ সব চালু করতে দেব না।’’