মসজিদ থেকে নামাজ পড়ে ফেরার পথে এক প্রৌঢ়কে তাঁরই এক আত্মীয় রড দিয়ে পিটিয়ে খুন করেছে বলে অভিযোগ। নিহতের নাম রমজান শেখ (৫৮)। মঙ্গলবার ভোরে  চাপড়ার আলফা গ্রামের ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত জালাল হালসানা রমজানের পিসির ছেলে। ঘটনার পর থেকে সে পলাতক। পারিবারিক অশান্তি নিয়ে বিবাদের জেরে এই খুন বলে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান। পুলিশ জানিয়েছে, সম্প্রতি জালালের স্নায়ুর সমস্যা দেখা দিয়েছিল। প্রায় দিনই সে বাড়িতে অশান্তি করত। স্ত্রীকে মারধর করত। তার হাত থেকে বাঁচতে জালালের স্ত্রী পাশেই রমজানের বাড়িতে পালিয়ে আশ্রয় নিত। তারপর আবার জালালকে বুঝিয়ে তাঁর স্ত্রীকে বাড়ি পাঠিয়ে দিতেন রমজান। এই নিয়ে তিনি একাধিকবার জালালকে বকাঝকাও করেন। এ নিয়ে ক্ষোভ জমেছিল জালালের মনে। এর মধ্যে আবার তার স্ত্রী রাগ করে বাপের বাড়ি চলে যান। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে যে, এতে জালালের ধারণা হয় যে রমজানের পরামর্শেই তাঁর স্ত্রী বাড়ি ছেড়ে চলে গিয়েছে। এই রাগ থেকেই জালাল এ দিন সকালে রমজানের উপরে চড়াও হয় বলে তদন্তকারীদের দাবি। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, এ দিন সকালে নামাজ পড়ে বাড়ি ফিরছিলেন রমজান। সেই সময় আচমকা তাঁর পথ আগলে দাঁড়ায় জালাল। কোনও কিছু বোঝার আগেই লোহার রড দিয়ে এলোপাথাড়ি আঘাত করতে থাকে। রক্তাক্ত অবস্থায় লুটিয়ে পড়েন রমজান। এলাকার লোক তাকে ধরার আগেই পালিয়ে যায় জালাল। রক্তাক্ত অবস্থায় রমজানকে প্রথমে চাপড়া গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।