দিন কয়েক বন্ধ থাকার পর ফের কল্যাণী ব্লকের সরাটি পঞ্চায়েত এলাকায় ভাঙন শুরু হয়েছে। ভাগীরথীর গর্ভে চলে যাচ্ছে বিঘার পর বিঘা চাষের জমি। বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে বেশ কয়েকটি বাড়ি।

  ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সরাটি পঞ্চায়েতের প্রধান ইমিলি ইয়াসমিন বলেন, “বুলবুলের পর কয়েকটি জায়গায় ভাঙন শুরু হয়েছে। ওই সব এলাকায় চাষের জমি ভেঙে নদীতে চলে যাচ্ছে। এলাকায় নজর রাখা হচ্ছে। ক্ষতির পরিমাণ হিসেব করে দেখা হচ্ছে। প্রসাশনকে বিষয়টি জানানো হবে।”

পঞ্চায়েত ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গত দু’দিন ধরে কল্যাণী ব্লকের সরাটি পঞ্চায়েতের হেমনগর, উত্তর সরাটি এবং রায়ডাঙায় ভাঙন শুরু হয়েছে। মাঝেমাঝেই বেশ খানিকটা এলাকা জুড়ে নদীর পাড় ভেঙে পড়ছে। ভাগীরথীতে চলে যাচ্ছে বিঘার পর বিঘা জমি। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, চাষের উপরে এলাকার প্রায় সব মানুষের জীবন জীবিকা নির্ভর করে। সেই জমি নদীতে চলে যাচ্ছে। দূরে দাঁড়িয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করতে পারছেন না।  

সরাটি পঞ্চায়েতের প্রাক্তন সদস্য নুর ইসলাম মণ্ডল বলেন, “কিছু দিন আগে কয়েকটি জায়গায় বালির বস্তা ফেলে ভাঙন রোধের চেষ্টা করা হয়েছিল। তাতে কাজ হয়নি। সেই জায়গায় আবার ভাঙন শুরু হয়েছে।” তিনি জানান, ভাঙনে চাষজমির ক্ষতি হচ্ছেই, ১০টির মতো বাড়ি বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে।