মতুয়া ভোট ব্যাঙ্ক দখলের লড়াই তো ছিলই। লোকসভা ভোটের আগে জনসংযোগ বাড়ানোর টক্করও শুরু হয়ে গেল বিজেপি এবং তৃণমূলের মধ্যে। রানাঘাট লোকসভা এলাকায় মূলত তৃণমূল নেতাদের উদ্যোগে শুরু হয়েছে ‘এমপি কাপ’। নানা সরকারি প্রকল্পের বিষয়ে মতামত জানতে চেয়ে বিজেপি শুরু করেছে ‘মন কি বাত’।

এমপি কাপ শুরু হয়েছে গত মাসেই। রানাঘাট লোকসভা এলাকার সাতটি বিধানসভা কেন্দ্র ধরে বিভিন্ন পঞ্চায়েত ও পুর এলাকার দলগুলির মধ্যে ফুটবল ম্যাচ চলছে। বিভিন্ন মাঠে চলছে খেলাগুলি। ১২৮টি দল তাতে যোগ দিয়েছে। তাদের সমর্থন জানাতে মাঠে আসছেন এলাকার লোকজন। খেলাগুলির দায়িত্বে রয়েছেন মূলত শাসক দলের নেতা-জনপ্রতিনিধিরা। খেলাকে সামনে রেখেই তাঁরা ভোটের আগে জনসংযোগ বাড়ানোর কাজ সেরে নিচ্ছেন।

রানাঘাটে বিজেপির জেলা দফতরে আবার রাখা হয়েছে একটি বাক্স। তার পাশে রাখা পোস্টকার্ডের মাপের কিছু ছাপা কাগজ। বিভিন্ন সরকারি প্রকল্প নিয়ে নিজেদের মতামত, চাহিদা, অভাব অভিযোগ ইত্যাদি সেই কাগজে লিখে জমা বাক্সে ফেলা যাবে। ইচ্ছা হলে প্রত্রপ্রেরক নিজের নাম-ঠিকানা লিখতে পারে, না-ও লিখতে পারেন। তার রিপোর্ট জমা হবে দলের রাজ্য দফতরে। বিজেপির কেন্দ্রীয় স্তর থেকেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পোশাকি নাম ‘ভারত মন কি বাত মোদীজি কে সাথ’। নদিয়া দক্ষিণে তা চালু হয়েছে বৃহস্পতিবার। পরে নানা বিধানসভা এলাকাতেও বাক্স পাঠানো হবে বলে দল সূত্রের খবর।

রানাঘাট লোকসভা এলাকায় মতুয়া ভোটের আধিক্য রয়েছে। মতুয়া ভোটব্যাঙ্ক দখল করা নিয়ে কিছু দিন ধরেই তৃণমূল এবং বিজেপির দড়ি টানাটানি চলছে। উভয় দলই মতুয়াদের নিয়ে নানা সম্মেলন এবং সমাবেশ করেছে। তাতে উভয় দলের নেতারা উপস্থিত থেকেছেন। এখন আরও নানা নতুন পন্থা বার হচ্ছে।

বিজেপির নদিয়া দক্ষিণ সাংগঠনিক জেলা সভাপতি জগন্নাথ সরকারের দাবি, “মন কি বাত বাক্স থেকে আমরা মানুষের মতামত যেমন জানতে পারব, মানুষের কাছে পৌঁছনোও যাবে দ্রুত। জনসংযোগের ক্ষেত্রে অনেকটাই সুবিধা হবে।” রানাঘাটের তৃণমূল সাংসদ তাপস মণ্ডল অবশ্য দাবি করছেন, “মানুষের পাশে আমরা সারা বছরই থাকি। জনসংযোগের কাজ করি। ভোটের পাখি নই। মানুষ সেটা বোঝে। কোনও ভোটের দিকে না তাকিয়ে আমরা আসলে ফুটবল খেলাটাকেই তুলে ধরতে চাইছি।”