চুক্তিভিত্তিক কর্মী নিয়োগ পরীক্ষার আবেদনকারীদের জন্য হেল্পলাইন চালু করল উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ নিগম। চলতি জুন মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া পর্ব শুরু হয়েছে। শূন্যপদ পূরণের জন্য জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত নিয়োগ প্রক্রিয়া চলবে। সম্প্রতি চালু হওয়া হেল্পলাইনটি ইন্টারভিউ পর্ব শেষ না হওয়া পর্যন্ত সক্রিয় থাকবে বলে জানানো হয়েছে। শুধুমাত্র ছুটির দিন ছাড়া অন্য যে কোনও দিন অফিসের সময়ে হেল্পলাইন নম্বরে ফোন করে সমস্যার কথা জানালে আবেদনকারীরা প্রয়োজনীয় পরামর্শ পাবেন বলে নিগম কর্তৃপক্ষ জানান। বাস চালক কন্ডাক্টর ও মেকানিক পদ মিলিয়ে ১৮৫০টি শূন্যপদে চুক্তিভিত্তিক কর্মীর আবেদন জমা পড়েছে ১০ হাজারেরও বেশি। আবেদন জমা দিয়ে অনেকে মৌখিক পরীক্ষায় ডাক পাননি বলে অভিযোগ। যোগ্যতা থাকলেও তাঁদের বঞ্চিত হতে হয়েছে বলে দাবি করেছেন আবেদনকারীরা। পরীক্ষার ডাক পেয়ে চিঠি না পৌঁছনো অথবা দেরিতে পাওয়ায় চাকরির সুযোগ হাতছাড়া হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। আবেদনকারীরা যাতে পরীক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত না হন সে কারণেই ওই হেল্পলাইন চালু হয়েছে ।

নিগমের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর জয়দেব ঠাকুর বলেন, “নিয়োগে স্বচ্ছতা বজায় রাখতে যাবতীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট পদগুলির জন্য নির্দিষ্ট যোগ্যতার সব আবেদনকারীকেই পরীক্ষায় ডাকা হবে। সময়ে মৌখিক পরীক্ষার চিঠি না পেলে কর্মপ্রার্থীরা হেল্পলাইনের সাহায্য পাবেন।”

নিগম সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথম ধাপে কন্ডাক্টরের ৮১৫টি শুন্যপদ পূরণের জন্য কর্মী নিয়োগের ইন্টারভিউ পর্ব চলছে। লোকসভা ভোটের আগে আবেদন জমা নেওয়া হয়। ৬ হাজারের বেশি কর্মপ্রার্থী আবেদন করেন। সমস্ত আবেদন যাচাই করার পর যোগ্যতা, অভিজ্ঞতার খামতি থাকায় তাদের ২৬০০ জনকে ইন্টারভিউয়ের চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। চালকের ৮৮৫টি ও মেকানিক্যাল কর্মীদের ১৫০ শূন্যপদে প্রায় ৪ হাজার আবেদন জমা পড়েছে। প্রাথমিক ধাপে চালকের শূন্যপদ পূরণে ৩৫০০ জনকে ‘টেস্ট ড্রাইভে’ ডাকা হয়েছে। সেখানে সফলদের পরে ইন্টারভিউয়ে ডাকবে নিগম। প্রথম ধাপে মেকানিক্যাল কর্মী নিয়োগ সংক্রান্ত ইন্টারভিউ পর্ব শেষ হয়েছে। এনবিএসটিসির পরিচালন বোর্ডের সদস্য আবদুল জলিল আহমেদ বলেন, “জুলাইয়ের দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে তিনটি বিভাগের ১৮৫০টি শূন্য পদের ইন্টারভিউ সম্পূর্ণ করার জন্য লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ এবং আন্তরিক উদ্যোগে সংস্থায় এত বিপুল সংখ্যক কর্মী নিয়োগ করার অনুমোদন মিলেছে। পুজোর আগে দেড়শোরও বেশি নতুন বাস আসবে। নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হলে নিগমের পরিষেবার কাজে গতি বাড়বে।

মাসকয়েক আগে নিগমের কর্মী সংখ্যা ছিল প্রায় সাড়ে ৩ হাজার। তাদের ৫৮১ জনের নাম ভিআরএস বা স্বেচ্ছাবসর প্রকল্পের তালিকায় রয়েছেন। গত ফেব্রুয়ারিতে প্রথম দফায় ১৯৩ জনকে ও চলতি জুন মাসে দ্বিতীয় দফায় ৮৪ জনকে স্বেচ্ছাবসর দেওয়া হয়। বাকি ৩০৪ জনকেও আগামী জুলাই মাসের মধ্যে ভিআরএস দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিগম। যার জেরে স্বাভাবিক পরিষেবা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়। সেই সঙ্গে নতুন বাসও আসতে শুরু করেছে। সে কারণেই তড়িঘড়ি ওই বিপুল সংখ্যক চুক্তিভিত্তিক কর্মী নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।